ঘর-বাড়ি নদীগর্ভে বিলীন

কালিহাতীতে অবৈধ বালু উত্তোলনের মহোৎসব

  টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

১৪ জানুয়ারি ২০১৮, ১৪:৪২ | অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলা প্রশাসনের গাফিলতির কারণে বন্ধ হচ্ছে না অবৈধ বালু উত্তোলন। দিনের পর দিন বালু উত্তোলন চলমান থাকলেও প্রশাসনের তেমন কার্যকর পদক্ষেপ লক্ষ্য করা যায় না। নদী থেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের ফলে গ্রামের পর গ্রাম ও বাড়ি ঘর চলে যাচ্ছে নদী গর্ভে। সহায় সম্বল হারিয়ে নিঃস্ব হচ্ছেন শত শত মানুষ।

সরেজমিনে গোহালিয়াবাড়ি ইউনিয়নে বেলটিয়ায় ধলেশ্বরী নদীর মুখ তলায় গিয়ে দেখা যায় কমপক্ষে কয়েকটি বাংলা ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে দীর্ঘদিন যাবত বালু উত্তোলন করছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। এর মধ্যে আহম্মদ প্রামানিকের দুইটি, আব্দুল আলীমের দুইটি ও জাহাঙ্গীর তালুকদারের ড্রেজার রয়েছে। এছাড়া স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা যমুনা নদীতে বালু উত্তোলনের জন্য আধুনিক ড্রেজার বসিয়েছেন। এদিকে কালিহাতী উপজেলার বিভিন্ন নদীতে কমপক্ষে ১০ টি ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন হচ্ছে বলে জানা গেছে।

অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার কারণে যমুনা তীরবর্তী বেলটিয়া, আলিপুর, বল্বভবাড়িসহ অনেক গ্রামে শতাধিক বাড়িঘর ইতোমধ্যে নদী গর্ভে চলে গেছে। পরিবর্তন হচ্ছে গ্রামের মানচিত্র। দেশের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা বঙ্গবন্ধু সেতুর দক্ষিণে সেতু  রক্ষা গাইড বাঁধ ধসে গেছে। প্রভাবশালীরা বালু উত্তোলন ও ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকায় ভুক্তভোগীরা প্রতিবাদ করার সাহস পর্যন্ত পায় না।

ক্ষতিগ্রস্তদের অভিযোগ ইউনিয়ন ভূমি অফিসের কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করেই চলছে এই অবৈধ বালু উত্তোলন। তাই তারা দেখেও না দেখার ভান করে থাকেন। আমাদের করার কিছুই নাই।

অবৈধভাবে  বালু উত্তোলনের ব্যাপারে কালিহাতী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাম্মৎ শাহীনা আক্তার প্রশাসনের গাফিলতির অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন আমরা খবর পাওয়া মাত্রই ব্যবস্থা নিচ্ছি।

 

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে