সবজির দাম কমলেও এখনো চড়া চাল-মাছ

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০১:০২ | অনলাইন সংস্করণ

রাজধানীর কাঁচাবাজারে সবজির দাম কিছুটা কমেছে। অন্যদিকে সপ্তাহের ব্যবধানে বেড়েছে মাছের দাম। এ ছাড়া হঠাৎ করে আবারও চালের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। কেজিপ্রতি বেড়েছে ৪ থেকে ৮ টাকা।

খুচরা বাজারে প্রতিকেজি মিনিকেট চাল পাঁচদিন আগে বিক্রি হয়েছে ৫০ থেকে ৫২ টাকা দরে, যা বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৫৭ থেকে ৫৮ টাকায়। আটাশ চাল ৪৮-৫০ টাকা থেকে বেড়ে ৫৩-৫৪ টাকা, গুটি স্বর্ণা ৩৮-৪০ টাকা থেকে বেড়ে এখন ৪৪-৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

কাওরানবাজারের চাল ব্যবসায়ী বাহদুর সরদার বলেন, পাইকারি পর্যায়ে এক সপ্তাহ আগেও প্রতিবস্তা (৫০ কেজি) মিনিকেট চাল বিক্রি হয়েছে ২ হাজার ৬৫০ টাকা। বর্তমানে তা বৃদ্ধি পেয়ে ২ হাজার ৯০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আটাশ চালের বস্তা ছিল ২ হাজার ৬০০ টাকা, যা বেড়ে বর্তমানে ২ হাজার ৬৫০ টাকা, গুটি স্বর্ণা ছিল ১ হাজার ৭০০ টাকা যা বর্তমানে ১ হাজার ৮০০ টাকা হয়েছে। এ জন্য খুচরা বাজারেও চালের দাম বেড়েছে।

মাছ ব্যবসায়ীদের দেওয়া তথ্যমতে, গত সপ্তাহের তুলনায় প্রায় সব জাতের মাছরে দামই কেজিপ্রতি বেড়েছে ২০ থেকে ৫০ টাকা।

গতকাল বাজারে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিকেজি রুই মাছ ২৩০ থেকে ২৮০ টাকা, কাতল ২২০ থেকে ২৫০ টাকা, পাঙ্গাশ ১২০ থেকে ১৫০, সিলভারকার্প ১৫০, তেলাপিয়া ১৮০, শিং ও মাগুর বিক্রি হচ্ছে ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা দরে; যা গত সপ্তাহে কেজিপ্রতি ২০ টাকা কম ছিল।

এ ছাড়া দেশি মাছের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে কেজিতে প্রায় ৩০ থেকে ৫০ টাকা। বাজারে দেশি মাছের চাহিদা বেশি হওয়ায় দামও একটু বেশি বলে জানান ব্যবসায়ীরা। প্রতিকেজি টেংরা বিক্রি হচ্ছে ৩৮০ থেকে ৪৫০ টাকা, বাটা মাছ কেজিপ্রতি ৩২০ থেকে ৪০০ টাকা। এ ছাড়া সাগরের মাছের মধ্যে ৭০০ থেকে ৮০০ গ্রাম সাইজের প্রতিকেজি ইলিশ ৮০০ টাকা, কোরাল প্রতি কেজি ৪০০ থেকে ৫০০, রূপচান্দা আকারভেদে ৫৫০ থেকে ৭০০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে।

সপ্তাহ ব্যবধানে সবচেয়ে বেশি দাম কমেছে লাউয়ের। গত সপ্তাহে মাঝারি সাইজের লাউ ১০০ টাকায় বিক্রি হলেও গতকাল বাজারে ৫০ থেকে ৬০ টাকাতে বিক্রি হচ্ছে লাউ।

কাওরানবাজারের ব্যবসায়ী আনিস আলী জানান, বাজারে লাউ ও টমেটোর সরবরাহ বেড়েছে। সে কারণে আগের সপ্তাহের তুলনায় দামও কম। সপ্তাহের ব্যবধানে দাম সব থেকে বেশি কমেছে লাউয়েরÑ জানান আনিস।

বাজারে পাকা টমেটো মানভেদে ১৫ থেকে ২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা যায়। এক সপ্তাহ আগেও পাকা টমটোর কেজি ছিল ৩০ টাকা। ব্যবসায়ীরা বলছেন, এখন টমেটোর ভরা মৌসুম। আড়তেও পর্যাপ্ত টমেটো পাওয়া যাচ্ছে, কোনো সংকট নেই। তাই দাম কম।

এদিকে বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ফুলকপি আকারভেদে ২৫ থেকে ৩৫ টাকা, শসা প্রতিকেজি ৪০ থেকে ৪৫ টাকা, পেঁপে ২০-২৫ টাকা, শিম ৪০ টাকা, বেগুন (কালো) ৪০, বেগুন (সাদা) ৫০ টাকা, চিচিঙ্গা ৪০ টাকা, ঝিঙ্গা ৬০ টাকা, করলা ৭০ টাকা এবং মটরশুঁটি ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

কাঁচমরিচ বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে। আগের সপ্তাহের দামেই বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। খুচরা বাজারে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকায়। প্রায় একই দামে বিক্রি হচ্ছে আমদানি করা পেঁয়াজও।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে