মৃত্যুর আগে লিখেছিলেন, ‘যাত্রা শুরু হলো’

  মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি

১৩ মার্চ ২০১৮, ২০:২৭ | আপডেট : ১৩ মার্চ ২০১৮, ২১:৪১ | অনলাইন সংস্করণ

মানিকগঞ্জের মেয়ে শশী। স্বামী শাওনকে নিয়ে ফেসবুকে ছবি দিয়েছিলেন। লিখেছিলেন, ‘যাত্রা শুরু হলো।’ শশী-শাওন দম্পতির যাত্রা ঠিকঠাকভাবেই শুরু হয়েছিল। তবে শশীর যাত্রা যে না ফেরার দেশের উদ্দেশে তা হয়তো জানতো না এই দম্পতি। 

গতকাল মঙ্গলবাল ইউএস-বাংলার ফ্লাইট বিএস ২১১ বিমানে করে নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর উদ্দেশে রওনা দেন তাহিরা তানভিন শশী ও ডা. রেজায়ানুল হক শাওন শাওন। কিন্তু বিমানবন্দরে নামার আগেই বিধ্বস্ত হয় বিএস ২১১ নামের বিমানটি। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন এই শশী। আর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি আছেন শাওন।

আগামী ১৭ মার্চ শশী-শাওন দম্পতির বিবাহবার্ষিকী। জীবনে হাত ধরাধরি করে পথ চলা শুরুর এই দিনটি নেপালেই স্মরণ করতে চেয়েছিলেন তারা। ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ফেসবুকে একটি পোস্টও দেন শশী। সেখানে তিনি লেখেন, ‘এবং যাত্রা এখানেই শুরু হলো...# বিবাহবার্ষিকীর আগাম উদযাপন# তার সঙ্গে বিশেষ কিছু মূহুর্ত’  

নিহত শশীর বাড়ি মানিকগঞ্জ শহরের লঞ্চঘাট এলাকায়। সদ্য এলএলবি পাস করা শশী বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান ছিলেন। শশীর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, অবসরপ্রাপ্ত চিকিৎসক ডা. রেজা হাসানের মেয়ে শশীর সঙ্গে শাওনের বিয়ে হয় সাত বছর আগে। তবে তাদের কোনো সন্তান নেই। শাওন রংপুর মেডিকেল কলেজে চিকিৎসক হিসেবে কর্মরত।  

শাওনের গ্রামের বাড়ি মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলার গোপালপুর এলাকায়। তার বাবার নাম মোজাম্মেল হক। আহত শাওন নেপালের একটি হাসপাতালে আইসিউতে ভর্তি আছেন বলে জানিয়েছেন তার মামা মো. আসাদ।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে