• অারও

চরম হতাশায় ভুগছে সরকার : আমির খসরু

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২০ মার্চ ২০১৮, ১৫:৩৪ | আপডেট : ২০ মার্চ ২০১৮, ১৫:৫৮ | অনলাইন সংস্করণ

সরকার চরম হতাশা ও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘বিএনপিসহ ২০ দলের মধ্যে কোনো হতাশা নেই। হতাশা শুধু সরকারি দলে। তাদের হতাশা এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে তারা কোনো পথ চলবে তার দিশা পাচ্ছে না।’

আজ মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, স্বাধীনতা সুসংহত, আইনের শাসন ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য করণীয় শীর্ষক এ আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ জাতীয় দল নামের একটি সংগঠন।

সরকারি দলের আচরণ শুধু অগণতান্ত্রিক নয়, স্বৈরতান্ত্রিকই নয়, তাদের আচরণ ফেসিজমে পৌঁছে গেছে মন্তব্য করে আমির খসরু বলেন, ‘এটা নিরাপত্তাহীনতার একটি লক্ষণ। এই ধরণের একটি দল তারা যখন নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে, জনগণকে ভয় পায় তখন তারা জনগণের অধিকার কেড়ে নিতে চায়।’

বিএনপির এই নীতিনির্ধারক বলেন, ‘সরকারের নিরাপত্তাহীনতা এমন পর্যায়ে গেছে যেখানে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে অস্ত্র নিয়ে আসতে হয়। জোর করে জনগণকে তুলে নিতে চায়।’

তিনি বলেন,‘ সরকার খালি হাতে আসতে সাহস পায় না। তাদের এমন কি ভয়-ভীতি? মনে হচ্ছে তারা যুদ্ধে নেমেছে। যে পথে সরকার যাচ্ছে তা কিন্তু স্বৈরশাসকের পথ। একদলীয় শাসকের পথ। এই পথে জনগণকে আরও নিষ্পেষিত, নির্যাতিত হতে হবে।’

আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে তারা নিপীড়ন নির্যাতন, গুম, খুন,  হত্যা, জেল ও জুলুমের পথ বেঁছে নিয়েছে বলেও মন্তব্য করেন বিএনপির এই নেতা।

তিনি বলেন, ‘নির্বাচনকে সামনে রেখে তারা যে প্রকল্প নিয়েছে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে হলে জনগণকে বাইরে রেখে খালেদা জিয়াকে জেলে রাখতে হবে। জনগণকে যদি ভোট থেকে বাইরে রাখতে হয় তাহলে বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে রাখতে হবে।’

সাবেক এই বাণিজ্য মন্ত্রী আরও বলেন, ‘দেশের ১৭ কোটি মানুষ আজ বদ্ধপরিকর। শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি আমরা ঘোষণা করেছি তাতে তারা পূর্ণ সমর্থন জানিয়ে কেউ আমাদের সঙ্গে হাঁটছে, কেউ পেছনে বা কেউ পাশে হাঁটছে। আমাদের লক্ষ্য একটাই, দেশে আবারও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করা। আমরা এতে সফল হবোই।’ 

গণতন্ত্রের মা বেগম খালেদা জিয়া শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বের গণতন্ত্রের মা হিসেবে বিশ্বের কাছে স্বীকৃত পাবেন বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

আলোচনা সভার সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের চেয়ারম্যান এড. সৈয়দ এহ্সানুল হুদা। সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সাবেক মন্ত্রী মোস্তোফা জামান হায়দার, এলডিপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম,  বাংলাদেশ ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তোফা ভূইয়া, লেবার পার্টির (একাংশের) হামদুল্লাহ আল মেহেদী, এনডিপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মঞ্জুর হোসেন ঈসা, জাতীয় দলের মহাসচিব মো. রফিকুল ইসলাম, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে