যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের সমাবেশ

‘গান্ধীজি স্টাইলের আন্দোলনে শত বছরেও মুক্তি মিলবে না খালেদা জিয়ার’

  এনআরবি নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে

১৩ জুন ২০১৮, ১০:০৮ | আপডেট : ১৩ জুন ২০১৮, ১৬:০০ | অনলাইন সংস্করণ

গান্ধীজি স্টাইলের আন্দোলনে শত বছরেও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি মিলবে না বলে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের কেন্দ্রীয় নেতারা। কারাবন্দী খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জাসাসের এক সমাবেশে বক্তরা এই মন্তব্য করেন।

বক্তারা প্রচণ্ড ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, ‘গান্ধীজির স্টাইলে অহিংস আন্দোলন এবং সরকারের অনুমতি নিয়ে সভা-সমাবেশের পন্থা অবলম্বনের যে মানসিকতা পরিলক্ষিত হচ্ছে, তা দিয়ে শত বছরেও চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা যাবে না। গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানকেও রক্ষা করা সম্ভব হবে না। এ জন্যে দরকার নব্বইয়ের স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের চেয়েও ভয়ংকর আন্দোলন।’

সমাবেশে কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ও চিত্রনায়ক হেলাল খান বলেছেন, ‘জোর করে ক্ষমতায় আঁকড়ে থাকা শেখ হাসিনা সরকারের বাজেটও জনগণ প্রত্যাখান করেছে। কারণ এই বাজেট করা হয়েছে আওয়ামী লীগের লোকজনের স্বার্থে, লুটতরাজের অভিপ্রায়ে। রাষ্ট্রীয় সম্পদ লুটের মধ্য দিয়ে তারা আবারও ক্ষমতায় থাকতে চায়।’

প্রবাসীদের প্রতি উদাত্ত আহবান জানিয়ে কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান তছনছ করা হয়েছে। গণতন্ত্রের প্রতীক বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দী করা হয়েছে। এখন তার চিকিৎসা প্রদানেও গড়িমসি করা হচ্ছে। এই সরকারকে হঠাতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক আন্তর্জাতিক সম্পাদক গিয়াস আহমেদ বলেন, ‘সরকার জেনে গেছে যে ৯৫% মানুষই তাদেরকে চায় না। এ জন্যেই বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রেখে আরেকটি ৫ জানুয়ারির প্রহসনের নির্বাচনের ফন্দি এঁটেছে। কিন্তু বিএনপির আদর্শে উজ্জীবিতরা তা হতে দেবে না।’

যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল বলেন, ঈদের পর আন্দোলনের ডাক এলেই সকলকে ভেদাভেদের ঊর্দ্ধে উঠে কাজ করতে হবে।

যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-আন্তর্জাতিক সম্পাদক এম এ বাতিন বলেন, ঈদের পর জাতিসংঘ এবং স্টেট ডিপার্টমেন্টের সামনে কর্মসূচি দেওয়া হবে। সেখানে দলে দলে যোগদানের প্রস্তুতি নিন এখন থেকেই। ১/১১ পরবর্তী সময়ের চেতনায় দুর্বার আন্দোলনের মধ্য দিয়ে সরকারকে অপসারণ করে জনগণের সরকার বসাতে হবে।

জাসাসের কেন্দ্রীয় নেতা দারাদ আহমেদ বলেন, ‘গান্ধীজির মত অহিংস আন্দোলনের দিন শেষ। এখন প্রয়োজন টেনে-হিচড়ে গতি থেকে নামানোর আন্দোলন। সরকারের অনুমতি নিয়ে সভা-সমাবেশের ওপর ভরসা করে থাকলে শত বছরেও বেগম জিয়াকে মুক্ত করা যাবে না।’

এ সমাবেশের জন্যে গঠিত সাব-কমিটির আহবায়ক শেখ হায়দার আলীর সভাপতিত্বে জ্যামাইকায় একটি পার্টি হলের এ সমাবেশ পরিচালনা করেন যৌথভাবে যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের সাধারণ সম্পাদক কাওসার আহমেদ এবং সদস্য-সচিব আনোয়ার হোসেন।

এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের সভাপতি আলহাজ্ব আবু তাহের, যুক্তরাষ্ট্র মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি আলহাজ্ব বাবরউদ্দিন, ব্রুকলীন বিএনপির সভাপতি আনোয়ার হোসেন এবং সেক্রেটারি জাহাঙ্গির সোহরাওয়ার্দি, কাজী কামাল, সিদ্দিক হুসেন রুবেল, এটিএম হেলালুর রহমান, তমিজউদ্দিন।

সমাবেশে নেতৃবৃন্দের মধ্যে আরও ছিলেন বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সিদ্দিকী, বিএনপি নেতা সৈয়দা মাহমুদা শিরিন, ফারুক হোসেন মজুমদার, বাকির আজাদ, মাওলানা আবুল কালাম প্রমুখ।

সমাবেশের পর ইফতারের সময় মাওলানা আবুল কালামের নেতৃত্বে বিশেষ মোনাজাতে খালেদা জিয়ার দ্রুত আরোগ্য কামনা করা হয়।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে