শাশুড়ির নির্যাতন, বিষপানে অন্তঃসত্ত্বার আত্মহত্যা

  ধনবাড়ী প্রতিনিধি

১৩ জুন ২০১৮, ২৩:৫০ | অনলাইন সংস্করণ

প্রতিকী ছবি

বিয়ের মাত্র এক বছরের মাথায় স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়ির নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

স্থানীয় কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বছর খানেক আগে উপজেলার কয়ড়া মধ্যপাড়া গ্রামের তুলসী চন্দ্র পালের সঙ্গে ময়মনসিংহের ফুলবাড়ী উপজেলার বাট্টা উত্তরপাড়া গ্রামের দ্বীনবন্ধু চন্দ্র পালের মেয়ে অজন্তা রানী পালের (১৬) বিয়ে হয়।

বিয়ের সময় নগদ ৮০ হাজার টাকা ও স্বর্ণালংকার যৌতুক হিসেবে দেওয়া হয়। কিন্তু আরও যৌতুক এনে দেয়াসহ নানা অজুহাতে অজন্তাকে মাঝে মধ্যেই শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করতেন তার স্বামী।

এমনকি অজন্তার শ্বশুর নারায়ন চন্দ্র পাল ও শাশুড়ি কল্পনা রাণীও তাকে বিভিন্নভাবে নির্যাতন করতেন। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে গত সোমবার (১১ জুন) কীটনাশক পান করে অজন্তা।

অজন্তার বাবা আমাদের সময়কে জানান, তার মেয়ে পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিল। তাকে তার স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়ি যৌতুকের জন্য প্রতিদিন বিভিন্নভাবে নির্যাতন করতেন। বিয়ের পর থেকে তার অন্তঃসত্ত্বা হওয়া পর্যন্ত অজন্তাকে নির্যাতন করার কারণে সে সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করে।

এদিকে গত সোমবার বিষপান করার পর অজন্তাকে গুরুত্বর অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ বুধবার সকালে মারা যায় অজন্তা।

এ বিষয়ে স্থানীয় সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মজিবর রহমান আমাদের সময়কে জানান,স্বামী ও শাশুড়ীর নির্যাতন সহ্য করতে না পেরেই মূলত অজন্তা আত্মহত্যা করেছে। তবে তার বাবার সাথে কথা বলে বিষয়টি মিমাংসার চেষ্টা চলছে বলেও তিনি জানান।

এদিকে স্বামী তুলসী চন্দ্র পাল নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন,‘এমনিতেই রাগ করে কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যা করেছে।’

ধনবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মজিবর রহমান জানান, এ ব্যাপারে কেউ তাকে কোনো কিছু জানাননি। তবে এমন কোনো ঘটনা ঘটে থাকলে ব্যবস্থা নেবেন তিনি।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে