স্বাভাবিকের থেকেও ফাঁকা ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক!

  টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

১৪ জুন ২০১৮, ২১:৫১ | আপডেট : ১৪ জুন ২০১৮, ২১:৫৯ | অনলাইন সংস্করণ

ঈদসহ যেকোনো ছুটিতে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের যানজটকে একটি স্বাভাবিক ঘটনা হিসেবেই ধরে নেন যাত্রীরা। তবে এবার ঈদুল ফিতরে এই মহাসড়ক স্বাভাবিকের চেয়েও ফাঁকা রয়েছে। ফলে নাড়ির টানে বাড়ি ফেরা মানুষ স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন।

আজ বৃহস্পতিবার মহাসড়কের টাঙ্গাইল অংশের এলেঙ্গা বাসস্ট্যান্ড, পৌলী, রসুলপুর, রাবনা বাইপাস, করটিয়া, নাটিয়াপাড়া, পাকুল্যা পর্যন্ত সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, যাত্রীবাহী বাস স্বাভাবিক গতিতেই চলাচল করছে।

আগে থেকেই যানজটের আশঙ্কা থাকলেও ঈদ যাত্রার তৃতীয় দিনে ব্যস্ততম এই মহাসড়কে ভোগান্তি ছাড়াই বাড়ি ফিরছেন সাধারণ মানুষ। তবে আজ বিকেলে মহাসড়কে যানবাহনের সংখ্যা কিছুটা বৃদ্ধি পেতে দেখা গেছে। 

নাড়ির টানে বাড়ি ফিরতে যাত্রীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাসের পাশাপাশি ট্রাক ও পিকআপের ছাদে করেও বাড়ি ফিরছেন।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশারফ হোসেন বলেন, ‘ঈদযাত্রার তৃতীয় দিনেও উত্তরবঙ্গগামী ঘরমুখো মানুষ স্বস্তিতে বাড়ি ফিরছে। আশা করছি, মানুষ এবারে ভোগান্তি ছাড়াই মহাসড়ক পাড়ি দিতে পারবে।’ 

এ বিষয়ে চন্দ্রা থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত চার লেন প্রকল্পের ব্যবস্থাপক জিকরুল হাসান জানান, এবারের ঈদযাত্রায় গত মঙ্গলবার থেকে চন্দ্রা থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত ২৩টি ব্রিজ খুলে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া চন্দ্রা থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত ৫০ কিলোমিটার চার লেন সড়ক ব্যবহারের সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে।

ঢাকা থেকে ধনবাড়ীগামী 'বিনিময়' বাসের যাত্রী তোফাজ্জল হোসেন জানান, মহাখালী থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত আসতে তার মাত্র সাড়ে তিন ঘণ্টা সময় লেগেছে। এ ছাড়া এবার সড়কের যে অবস্থা তাতে যানজট হবে না।  

টাঙ্গাইল পুলিশ সুপার (এসপি) সঞ্জিত কুমার রায় জানান, প্রতি দুই কিলোমিটার সড়কে একটি করে মোটরসাইকেল ভ্রাম্যমাণ পুলিশ দল রয়েছে। কোথাও যানজট হলে তারা দ্রুত সেখানে পৌঁছে ব্যবস্থা নিতে পারবেন। মহাসড়কে আট শতাধিক পুলিশ ও দেড় শতাধিক স্বেচ্ছাসেবক মোতায়েন করা হয়েছে।

সঞ্জিত কুমার রায় আরও জানান, আসন্ন ঈদে বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক যানজটমুক্ত রাখতে এবং ঘরমুখো মানুষদের নির্বিঘে গন্তব্যে পৌঁছে দিতে পুলিশ প্রশাসন সর্বাত্মক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

এই মহাসড়ক দিয়ে প্রতিদিন ২৩টি জেলার ১৪-১৫ হাজার যানবাহন চলাচল করে। ঈদে এ সংখ্যা ২২-২৫ হাজারে গিয়ে দাঁড়ায়। 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে