ঢাকায় ফিরছেন ‘অবরুদ্ধ’ মওদুদ

  নোয়াখালী প্রতিনিধি

১৭ জুন ২০১৮, ১৪:০৪ | আপডেট : ১৭ জুন ২০১৮, ১৪:৩০ | অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীতে নিজের নির্বাচনী এলাকা থেকে আজ রোববার ঢাকায় ফিরছেন ‘অবরুদ্ধ’ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। আজ দুপুরে টেলিফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি একথা জানান।

মওদুদ বলেন, ‘আমার নির্বাচনী এলাকায় যদি এ অবস্থা হয়, তাহলে সারা দেশে কী অবস্থা, তা সহজেই অনুমেয়। সরকার মুখে গণতন্ত্রের কথা বললেও কোথাও গণতন্ত্রের লেশমাত্রও নেই।’

এর আগে গতকাল শনিবার ঈদের দিন তাকে অবরুদ্ধ রাখার অভিযোগ করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য। তিনি বলেন, ‘পুলিশ আমাকে জনগণের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় এবং কোনো ইফতার পার্টিতে যোগ দিতে দেয়নি।’

মওদুদ আরও বলেন, ‘আমি সাবেক মন্ত্রী ও সংসদ সদস্য হওয়া সত্ত্বেও আমার সঙ্গে পুলিশ এ ধরনের আচরণ করেছে। আমার ও ওবায়দুল কাদেরের নির্বাচনী এলাকা একই। তার নির্দেশেই পুলিশ এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে। আমাকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়। এটি স্বৈরাচারী আচরণের আরেকটি দৃষ্টান্ত।’

শনিবার ঈদের দিন বিকেলে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার সিরাজপুর ইউনিয়নের মানিকপুর গ্রামে নিজ বাড়ি থেকে এলাকার দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ের জন্য গাড়িতে করে বের হচ্ছিলেন মওদুদ আহমদ। তখন বাড়ির সামনেই পুলিশ তাকে আটকে দেয় বলে অভিযোগ করেন তিনি।

এ সময় সাংবাদিকদের মওদুদ বলেন, ‘আজকে পরিষ্কার হয়ে গেছে যে, এই সরকার একটি জনবিচ্ছিন্ন সরকার, জনগণকে ভয় পায়। সাধারণ মানুষকে ভয় পায়। সেই কারণে আজকে আমাকে বাইরে যেতে দেওয়া হচ্ছে না।’

ঘটনাস্থলে কর্মরত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আমি বলেছি— হয় আমাকে অ্যারেস্ট করেন, যদি আপনারা মনে করেন যে, আমি অন্যায় কিছু করেছি বা বাইরে আমার এলাকায় যেতে চাই, এটা কোনো বেআইনি কিছু, তাহলে আমাকে গ্রেপ্তার করেন। থানায় নিয়ে চলেন, আমাকে হাজতে পাঠিয়ে দিন। আর তা না-হলে আমাকে যেতে দিন।’

মওদুদ আহমদ আরও বলেন, ‘কিন্তু উনারা অনড়, উনারা কিছুতেই এটা করবেন না। আমি থানার ওসি সাহেবের সঙ্গে কথা বলেছি। এসপি সাহেবের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা একই কথা বলছেন যে, আমরা আপনাকে বাড়ি থেকে বের হতে দেবো না।’

এ ব্যাপারে জেলা পুলিশ সুপার মো. ইলিয়াছ শরীফ বলেন, ‘মওদুদ আহমদ একজন বড় মাপের রাজনৈতিক নেতা। নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করেই তার বাড়ির সামনে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে এবং কবিরহাটের কাছে আওয়ামী লীগ এবং বিএনপির দুটি আলাদা অনুষ্ঠান থাকায়, তাকে না যাওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। সন্ধ্যার পূর্ব মুহূর্তে তিনি বাড়ি থেকে বের হলে নিরাপত্তাজনিত সমস্যা হতে পারে, এমন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতেই তাকে বাড়ির বাইরে না যাওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। তাকে বাড়ির মধ্যে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে এমন অভিযোগ সত্য নয়।’

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে