দুর্নীতি-লুটপাটে সারা দেশ লন্ডভন্ড : রিজভী

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১১ জুলাই ২০১৮, ১৯:৩৮ | আপডেট : ১১ জুলাই ২০১৮, ২১:২৭ | অনলাইন সংস্করণ

পুরোনো ছবি

দুর্নীতি-লুটপাটে সারা দেশ এখন লন্ডভন্ড হয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। আজ বুধবার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন তিনি। 

গত ২৯ জুন থেকে যুবদল নেতা হুমায়ুন কবির নিখোঁজ, ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইসহাক সরকারের রিমান্ডসহ সারা দেশে দলটির নেতাকর্মীদের চিত্র তুলে ধরে রিজভী এ মন্তব্য করেন। 

রুহুল কবির রিজভী বলেন, ঢাকা মহানগর উত্তর আদাবরের ৩০ নম্বর ওয়ার্ড যুবদল সভাপতি হুমায়ুন কবির গত ২৯ জুন বাসার সামনে থেকে মশার কয়েল কিনতে গেলে তাকে কয়েকজন অজ্ঞাত লোক মাইক্রোবাসে উঠিয়ে নিয়ে যায়। এখন পর্যন্ত তিনি নিখোঁজ। পরিবারের পক্ষ থেকে বারবার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে যোগাযোগ করলেও তারা হুমায়ন কবিরকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি অস্বীকার করে। তবে এটি নিশ্চিত, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীরই কোনো দল তাকে তুলে নিয়ে গেছে। এ ঘটনা বর্তমান সরকারের দেশকে বিরোধী দলশূন্য করার কর্মসূচির অংশ।

রিজভী বলেন, বাংলাদেশ এক ভয়াবহ আতঙ্কের দ্বীপে পরিণত হয়েছে। হাড় হিম করা এক ভয়াল আতঙ্ক সাধারণ মানুষকে সারাক্ষণ তাড়া করে ফিরছে। গণতন্ত্র ও বহুত্ববাদ জলাঞ্জলি দিয়ে বিভৎস স্বৈরাচার ও দুর্নীতি আধিপত্য বিস্তার করেছে। সন্ত্রাসের নির্মাণ ও বিপণনে যারা পারঙ্গম তাদের শাসনে জনমনে চাপা আতঙ্কই বিরাজ করে। দুর্নীতি-লুটপাটে সারা দেশ লন্ডভন্ড। এই অনাচার টিকিয়ে রাখতেই বর্তমান ভোটারবিহীন সরকার বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের গুম, খুন ও অদৃশ্য করে দেওয়ার অমানবিক ও নিষ্ঠুর খেলায় নিজেদেরকে ব্যাপৃত রেখেছে। বাংলাদেশ এখন দুঃস্বপ্নের দেশ।  

বিএনপির এই নেতা বলেন, কয়েকদিন আগে ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইসাহাক সরকারকে রাতের অন্ধকারে উঠিয়ে নিয়ে গিয়ে তার অবস্থান সম্পর্কে কিছুই জানায়নি আইন শৃঙ্খলা বাহিনী, পরিবারের সকলকে চরম উদ্বেগ, উৎকন্ঠার মধ্যে ঠেলে দিয়ে দুই দিন পরে তাকে আদালতে হাজির করা হয়। আদালতে তার ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়। এখন আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর  হেফাজতে রিমান্ডে থাকাকালীন তার প্রতি কি আচরণ করা হচ্ছে তা আমরা জানিনা। তবে তাকে নির্যাতনের মাধ্যমে কোন শেখানো বুলি বলানো হচ্ছে কী না তা নিয়ে দল ও তার পরিবার সকলেই উদ্বেগের মধ্যে আছে। আমি অবিলম্বে ইসাহাক সরকারের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও রিমান্ড বাতিল করে তার নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি জানাচ্ছি। 

রুহুল কবির রিজভী অভিযোগ করেন, দিনাজপুর জেলা বিএনপি’র যুগ্ম আহবায়ক বখতিয়ার আহমেদ কচি এবং বাগেরহাট জেলা বিএনপি’র যুগ্ম সম্পাদক খান মতিউর রহমান, লক্ষীপুর জেলা যুবদলের সভাপতি রেজাউল করিম লিটন গ্রেপ্তার করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ মহানগর  স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আবুল কাউসার আশাকে মিথ্যা মামলায় জামিন লাভের পরও কারাফটক থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। চট্টগ্রামে দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র স্বনির্ভরবিষয়ক সম্পাদক মজিবুর রহমানকে বারবার রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। এই ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে তাদের নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি করছি।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে