ম্যাক্সের চার চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ২০ দিন পর মামলা

চট্টগ্রামে শিশু রাইফার মৃত্যু

  চট্টগ্রাম ব্যুরো

১৯ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৯ জুলাই ২০১৮, ০৯:১৯ | অনলাইন সংস্করণ

চট্টগ্রামে সাংবাদিকের শিশুকন্যা রাইফা খানের মৃত্যুর ২০ দিনের মাথায় বেসরকারি ম্যাক্স হাসপাতালের চার চিকিৎসকের বিরুদ্ধে চকবাজার থানায় মামলা করেছেন

বাবা রুবেল খান। গতকাল বুধবার বিকালে তিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা

(ওসি) মো. আবুল কালামের কাছে এজাহার জমা দেন। গত ২৯ জুন রাতে মারা যায় রাইফা খান।

মামলায় আসামি চার চিকিৎসক হলেনÑ ম্যাক্স হাসপাতালের শিশু চিকিৎসক ডা. বিধান রায় চৌধুরী (৫০), ওই হাসপাতালের স্টাফ চিকিৎসক ডা. দেবাশীষ সেনগুপ্ত (৩২), ডা. শুভ্র দেব (৩২) ও ম্যাক্স হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডা. লিয়াকত আলী (৫৭)। তাদের বিরুদ্ধে রোগীকে চিকিৎসা দেওয়ার ক্ষেত্রে অবহেলা এবং আলামত গোপন করার অভিযোগ আনা হয়েছে। সে সঙ্গে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে গঠিত কমিটি ও চট্টগ্রাম সিভিল সার্জনের নেতৃত্বে গঠিত দুটি আলাদা কমিটির প্রতিবেদনও যুক্ত করা হয়েছে। এই দুই প্রতিবেদনেই ম্যাক্স হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের চিকিৎসার অবহেলা ও সেজন্য দায়ীদের শাস্তির সুপারিশ করা হয়েছে।

মামলার বাদী রুবেল খান বলেন, ঘটনার পরপরই সরকারের পক্ষ থেকে তদন্ত দল আসে। তা ছাড়া একমাত্র সন্তানকে হারিয়ে আমরা মানসিকভাবে বিধ্বস্ত ছিলাম। তাই সবকিছু সামলে মামলা করতে কিছুটা বিলম্ব হলো। তিনি এ ঘটনায় দায়ী ব্যক্তিদের পুনরায় শাস্তি দাবি করেন।

এজাহার জমা দেওয়ার সময় থানায় সাংবাদিক নেতাদের মধ্যে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি কলিম সরওয়ার, চট্টগ্রাম সাংবাদিক সমিতির (সিইউজে) সভাপতি নাজিমুদ্দিন শ্যামল, সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সহ-সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, যুগ্ম মহাসচিব মহসিন কাজীসহ জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক ও নেতারা উপস্থিত ছিলেন। এজাহার দেওয়ার মুহূর্তে চকবাজার থানায় আসেন চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) এসএম মোস্তাইন হোসাইন। তিনি প্রথমে মামলাটি আদালতে করার জন্য সাংবাদিক নেতাদের প্রতি অনুরোধ করেন। কিন্তু সাংবাদিক নেতারা থানাতেই ফৌজদারি মামলাটি করার ক্ষেত্রে অনড় অবস্থান নেন। শেষ পর্যন্ত চট্টগ্রাম পুলিশ কমিশনারের সম্মতিতে মামলাটি গ্রহণ করা হয়।

গত ২৯ জুন নগরীর মেহেদীবাগ এলাকায় অবস্থিত বেসরকারি ক্লিনিক ম্যাক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় দৈনিক সমকালের স্টাফ রিপোর্টার রুবেল খানের আড়াই বছরের কন্যাশিশু রাইফা খান। জ্বর ও গলাব্যথার কারণে হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডা. লিয়াকত আলীর পরামর্শে ১৮ জুন রাইফাকে ম্যাক্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অভিযোগ ওঠে, ভুল ওষুধ ও এন্টিবায়োটিক দেওয়াসহ চিকিৎসকের অবহেলার কারণে একদিনের মাথায় রাইফার মৃত্যু হয়।

পরবর্তীতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নির্দেশে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের নেতৃত্বে একটি এবং চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন আজিজুর রহমান সিদ্দিকীর নেতৃত্বে আরেকটি কমিটি ঘটনা অনুসন্ধান করে দুটি প্রতিবেদন দেয়। সিভিল সার্জন এ ঘটনায় চিকিৎসকদের অবহেলার বিষয়টি তুলে ধরেন। আর স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের তদন্ত কমিটি চিকিৎসা অবহেলার পাশাপাশি ম্যাক্স হাসপাতালের বিরুদ্ধে ১১টি অনিয়ম চিহ্নিত করে। সাংবাদিকরা এসব অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিতে লাগাতার আন্দোলন চালিয়ে আসছেন।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে