sara

মামলার তারিখ আসলে অসুস্থ হয়ে পড়েন খালেদা : শেখ হাসিনা

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২৩ জুলাই ২০১৮, ২১:২০ | আপডেট : ২৪ জুলাই ২০১৮, ০০:৪৯ | অনলাইন সংস্করণ

পুরনো ছবি

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, 'খালেদা জিয়া জেলখানায় খায়-দায়-শুয়ে থাকে, আর যেই মামলার তারিখ আসে সেই অসুস্থ হয়ে যায়। যখনই আদালতে হাজিরার তারিখ পড়ে তখনই অসুস্থ হয়ে যায়।'

আজ সোমবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সূচনা বক্তব্যে শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, 'নাইকো দুর্নীতি মামলায় এফবিআই বসে আছে স্বাক্ষ্য দেওয়ার জন্য। খালেদা জিয়া জানে যে কোর্টে গেলেই ধরা খাবে। তাই আদালতের হাজিরার তারিখ আসলেই অসুস্থ হয়ে পড়ে। আর হাজিরার তারিখ চলে গেলে আবার ভালো হয়ে যায়।'

কারাগারে খালেদা জিয়া সব ধরনের সুবিধা পাচ্ছেন জানিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, 'কোনো কিছুর কমতি নেই খালেদা জিয়ার কারাগারে। যা যা চাচ্ছে তাই পাচ্ছে। এরকম আয়েস করে তো আর কেউ পায়েস খেতে পারে নাই। সেও তো জেলে রেখেছিল, আমাদের সাবেক বিমানবাহিনী প্রধান জামালউদ্দীন সাহেবকে নিয়ে দুইটা কম্বল দিয়ে ফেলে রেখেছিল। রওশন এরশাদ বা অন্যদের কথা না হয় নাই বললাম। আর উনি আয়েশ করে থাকেন, আর কোর্টের তারিখ এলেই অসুস্থ হয়ে যান। তাহলে আমাদের কী করার আছে? এই যে নাটুকেপনা করা হচ্ছে এটাও একটা বিষয়।'

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'এতিমের টাকা মেরে জেলে, আমাদের কাছে মুক্তির দাবি করে তো লাভ নেই। আমরা তো জীবনেও ছাড়তে পারবো না, যতোক্ষণ না কোর্ট অর্ডার দেবে। আমাদের বিচার বিভাগ সম্পূর্ণভাবে স্বাধীন।'

আওয়ামী লীগ সভাপতি আরও বলেন, 'আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের শুধু নয়, এমনকি আমার ছেলেকে পর্যন্ত হত্যা করার ষড়যন্ত্র করেছে সেই আমেরিকায়। চুরি করে দুর্নীতি করে এতো টাকা কামিয়েছে যে সেখানে পর্যন্ত এফবিআইয়ের অফিসার পর্যন্ত তারা কিনে ফেলেছে। সেখান থেকে ষড়যন্ত্র করেছে জয়কে তুলে নিয়ে মেরে ফেলার। এইরকম একের পর এক ঘটনা তারা ঘটাচ্ছেই।'

রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রচার চলাকালে বিএনপির মিছিলে ককটেল হামলার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, "ভোটের মাঠে জনগণের কাছে সাড়া না পেয়ে ‘ব্লেইম গেইম’ শুরু করেছে বিএনপি। সবখানে তারা একটা নাটক করে আর্ন্তজাতিকভাবে দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চায়। এটা তাদের চরিত্র।"

আগামী ৩০ জুলাই রাজশাহী, সিলেট ও বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনের বিষয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, 'তিন সিটিতে শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচনী প্রচার চলছিল। হঠাৎ দেখা গেলো, রাজশাহীতে বিএনপির মিছিলে ককটেল ফুটলো। আমি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সঙ্গে সঙ্গে নির্দেশ দিলাম, এই ঘটনায় যারা জড়িত তাদেরকে গ্রেপ্তার করার জন্য। কিন্তু পরবর্তীতে দেখা গেল তাদের (বিএনপি) নিজেদের ভাষায় বেরিয়ে এলো-এটা তারা নিজেরাই করেছে শুধুমাত্র আওয়ামী লীগকে দোষারোপ করার জন্য।'

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে