মির্জা ফখরুলের আহ্বান

নিরাপদ বাংলাদেশ গড়তে সরকার পরিবর্তনে ঐক্যবদ্ধ হোন

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১৭ আগস্ট ২০১৮, ১৭:৩২ | আপডেট : ১৭ আগস্ট ২০১৮, ১৯:২৭ | অনলাইন সংস্করণ

জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংহতি সমাবেশে বক্তব্য দেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি : ফোকাস বাংলা

নিরাপদ বাংলাদেশ গড়তে সরকার পরিবর্তনে রাজনৈতিক দলগুলোসহ পেশাজীবীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ শুক্রবার দুপুরে এক সংহতি সমাবেশে মির্জা ফখরুল এই আহ্বান জানান। জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপি সমর্থিত ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের উদ্যোগে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন চলাকালে কর্তব্যরত সাংবাদিকদের ওপর হামলা ও গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে এই সংহতি সমাবেশ হয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দেশে এক অস্বস্তিকর দম বন্ধ করা একটা পরিবেশ বিরাজ করছে। চিন্তা করা যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের রাতের বেলা তুলে নিয়ে যাচ্ছে। এরপর রিমান্ডে নিচ্ছে। অপরাধটা কী? তারা সমর্থন দিয়েছিল শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে। উস্কানি দিয়েছে নাকি। শিক্ষার্থীদের ন্যায়সঙ্গত ও যুক্তিসঙ্গত আন্দোলনকে আমরা প্রথম দিনই সমর্থন দিয়েছি এবং এই সমর্থন অব্যাহত রেখেছি। আজকেও কোটা সংস্কার ও শিক্ষার্থীদের নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনকে আমরা অবশ্যই সমর্থন করব।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘জনগণকে আহ্বান করব শুধু নিরাপদ সড়ক নয়, নিরাপদ বাংলাদেশের জন্য আপনারা এগিয়ে আসুন। আপনারা জেগে উঠুন এবং আবার দেশকে স্বাধীন করুন।’ এই বিষয়ে সরকার পরিবর্তনে রাজনৈতিক দলগুলোসহ পেশাজীবীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বানও জানান তিনি।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া বক্তব্য হাস্যকর ও অর্বাচনীন বলে মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, ‘আমাদের স্বনির্বাচিত, স্বঘোষিত ও অবৈধ সরকারের প্রধানমন্ত্রী সব জায়গায় বিএনপির ভূত দেখতে পান, তিনি সব জায়গায় জিয়া পরিবারের ভূত দেখতে পান। না হলে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের সেই বিয়োগান্ত ঘটনায় তিনি বেগম খালেদা জিয়াকে কীভাবে যুক্ত করেন?  তিনি কীভাবে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকে তার সঙ্গে যুক্ত করেন?’

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘আপনি রাজনীতিবিদ। আপনি রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে আছেন। আপনার মুখ দিয়ে এই ধরনের অর্বাচীন কথা-বার্তা কখনোই শোভা পায় না। এটা আপনার স্বভাব। আপনার এই স্বভাবের মধ্য দিয়ে এই ধরনের একেবারে হাস্যকর ও অর্বাচীন কথা-বার্তা বলেন। আমরা তার এই বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি, প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

সংহতি সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন— বিএফইউজে’র একাংশের মহাসচিব এম আবদুল্লাহ, ডিইউজের সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, সিনিয়র সাংবাদিক আবদুল হাই শিকদার, বন্ধ থাকা দিগন্ত টিভির কর্মকর্তা মজিবুর রহমান মনজু, অ্যাসোসিয়েশন অব ইঞ্জিনিয়ার্সের রিয়াজুল ইসলাম রিজু প্রমুখ।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে