অশালীন মন্তব্যের প্রতিবাদ, কলেজছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা

  হালুয়াঘাট প্রতিনিধি

১৮ আগস্ট ২০১৮, ১২:১৬ | আপডেট : ১৮ আগস্ট ২০১৮, ১২:২০ | অনলাইন সংস্করণ

ফেসবুকে এক তরুণীর স্ট্যাটাসে অশালীন মন্তব্যের প্রতিবাদ করায় এক কলেজছাত্রকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় চার স্কুল শিক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলায়।

গতকাল শুক্রবার রাত ৮টার দিকে নাফিআল নাজরান (২২) নামে ওই ছাত্রকে পিটিয়ে আহত করা হয়। আজ শনিবার ভোর ৫টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

নিহত নাজরান মনিকুড়া গ্রামের নাজমুল হাসানের ছেলে। তিনি গৌরিপুর সরকারি পলিটেকনিক্যাল কলেজের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র।

আটককৃতরা হলো- সিয়াম, সোলায়মান, অয়ন ও হিমেল। তারা সেন্টএন্ড্রুজ উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র।

জানা গেছে, উপজেলার মনিকুড়া গ্রামের মেডিকেল কলেজ পড়ুয়া এক ছাত্রীর ফেসবুকের স্ট্যাটাসে অশালীন মন্তব্য করে একই এলাকার দশম শ্রেণির ছাত্র সুমন (১৬)। বিষয়টি ওই ছাত্রী তার খালাতো ভাই নাফিআল নাজরানকে জানায়। এ ঘটনায় শুক্রবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার সদরে সেন্টএন্ড্রুজ উচ্চ বিদ্যালয়ের পুকুর পাড়ে সুমনকে ধরে এনে মারধর করেন নাজরান।

পরে এর জেরে সুমন তার বন্ধু-বান্ধবসহ ১৫ জনকে নিয়ে নাজরানের ওপর হামলা করে। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। পরে শনিবার ভোর ৫টার দিকে হালুয়াঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

হালুয়াঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাহাঙ্গীর আলম তালুকদার আমাদের সময়কে জানান, খালাতো বোনের ফেসবুকে অশালীন মন্তব্যের প্রতিবাদে এলাকার আবু হালিমের ছেলে সুমনকে মারধর করেন নাজরান। পরে সুমন তার ১৫ জন বন্ধুকে নিয়ে গিয়ে নাজরানকে পেটায়। এতে তিনি গুরুতর আহত হওয়ার পর ভোরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

এ ঘটনায় চার ছাত্রকে আটক করা হয়েছে। বাকিদের আটকের চেষ্টা চলছে। নাজরানের মরদেহ ময়মনাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান পুলিশের ওই কর্মকর্তা।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে