আলোচনায় সভায় মওদুদ

মির্জা ফখরুল জাতিসংঘে যাওয়ায় সরকার আতঙ্কিত

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:২১ | আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:৫৫ | অনলাইন সংস্করণ

দেশের প্রকৃত অবস্থা জানাতে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জাতিসংঘের সদরদপ্তরে যাওয়ায় সরকার আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ।

সরকারি দলের মন্ত্রী ও নেতাদের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে আজ শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় মওদুদ এ মন্তব্য করেন। বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরামের উদ্যোগে ‘গণগ্রেপ্তার ও বিচার বিভাগের ওপর সরকারের হস্তক্ষেপ বন্ধ এবং নির্দলীয় সরকারের গঠন’ শীর্ষক এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মওদুদ আহমদ বলেন, ‘জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের আর ৯০ দিন বাকি আছে। কিন্তু নির্বাচনের কোনো পরিবেশ বাংলাদেশে নেই-এই কথাটা নালিশ নয়, এটা দেশের সত্যিকারের বর্তমান অবস্থার কথা।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, ‘বিএনপি মহাসচিব সেই সত্য উত্থাপনের জন্য জাতিসংঘে গেছেন। এটাতে তারা (সরকার) আতঙ্কিত হয়েছে, শঙ্কিত হয়েছে, অত্যন্ত বিব্রতবোধ হয়েছে। কী করে জাতিসংঘের সেক্রেটারি জেনারেল বিএনপিকে  ও  তাদের নেতৃবৃন্দকে দাওয়াত দিয়ে নিউইয়র্কে নিয়ে গেছেন। এটাতে তারা ঈর্শ্বান্বিত হয়েছে বলে এসব কথা-বার্তা বলছে।’

মওদুদ বলেন, ‘দেশে এখন কী অবস্থা বিরাজ করছে এবং বিরোধীদলের ওপরে অত্যাচার-নিপীড়ন হচ্ছে, সাধারণ মানুষের ওপরে অত্যাচার-নির্যাতন, মানবাধিকার লঙ্ঘন যেটা হচ্ছে সেই বাস্তব অবস্থা তুলে ধরার জন্য তিনি গেছেন।’

জাতিসংঘের সেক্রেটারি জেনারেল আন্তোনিও গুতেরেসের সঙ্গে বৈঠক সম্পর্কে মওদুদ আহমদ বলেন, ‘জাতিসংঘের মহাসচিব বাংলাদেশে এসছিলেন। কিন্তু তখন সময়ের অভাবে তিনি বিরোধীদলের সঙ্গে আলোচনা করার সময় করতে পারেননি। সেজন্য তিনি নিমন্ত্রণ পাঠিয়েছেন। দাওয়াতে গেছেন আমাদের মহাসচিব।’

সাবেক এ আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে বলা হয় নির্বাচনকালীন সরকার। বলা হচ্ছে এটা অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে হবে। নির্বাচনকালীন সরকার বলে বর্তমানে আমাদের সংবিধানে কোনো ব্যবস্থা নাই। আমি দৃঢ়তার সঙ্গে বলতে চাই, এটা প্রতারণা। জনগণকে বিভ্রান্ত করার জন্য এটা বলা হচ্ছে।’

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে