সংবাদ সম্মেলনে রিজভী

২১ আগস্ট হামলা ‘প্রহেলিকা’, আওয়ামী রাজনীতির ‘কুটিল পাটিগণিত’

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৪:৪৯ | আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৫:৫২ | অনলাইন সংস্করণ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ‘২১ আগস্ট বোমা হামলার পুরো বিষয়টাই একটি প্রহেলিকা। আওয়ামী রাজনীতির কুটিল পাটিগণিত। জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ধ্বংস করার দেশীয় ও বৈদেশিক চক্রান্তের বিপজ্জনক ব্লু প্রিন্ট।’

আজ রোববার দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, বিএনপিকে নিশ্চিহ্ন করার নানাবিধ ষড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতায় ২১ আগস্ট বোমা হামলা মামলায় সরকার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে আইন আদালতকে। কারণ, আইন আদালত এখন সম্পূর্ণভাবে সরকারের হাতের মুঠোয়।

সম্মেলনে ২১ আগস্ট বোমা হামলা মামলার দীর্ঘদিন পর অধিকতর তদন্তের নামে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে জড়ানো হয়েছে বলেও দাবি করেন বিএনপির এই নেতা। তিনি বলেন, ‌আগে দুবার চার্জশিটে তারেক রহমানের নাম ছিল না। শুধু প্রতিহিংসা পূরণের জন্য টার্গেট করেই সম্পূরক চার্জশিটে তার নাম উক্ত মামলায় জড়ানো হয়েছে। এ ক্ষেত্রে বেপরোয়া ক্ষমতার আস্ফালনে আইন আদালতকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

রিজভী আরও বলেন, ২১ আগস্ট বোমা হামলা একটি রহস্যাবৃত ঘটনা। বোমাবাজি শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে উপস্থিত নেতাকর্মীরা নেত্রীকে ঘিরে ধরে তাকে তার বুলেটপ্রুফ জিপে উঠিয়ে দেয়। ওই সময় জিপকে লক্ষ্য করে কয়েক রাউন্ড গুলি ছোঁড়া হয়। সেই গুলিতে তার ব্যক্তিগত দেহরক্ষী, প্রাক্তন সেনা সদস্য মাহবুব নিহত হয়। বুলেটপ্রুফ জিপটির জানালার কাঁচ ভেঙে যায়। গাড়ির চাকা পাংচার হয়ে যায়। ওই অবস্থায় আওয়ামী লীগ সভাপতিকে ধানমন্ডীর ৫ নং রোডের সুধাসদনে পৌঁছে দেওয়া হয়।

তদন্তে শেখ হাসিনার দেহরক্ষী, প্রাক্তন সেনা হাবিলদার মাহবুব কার গুলিতে মারা গেলেন তা নিরুপণে এসপি কাহার আকন্দের কোনো আগ্রহ-তৎপরতা পরিলক্ষিত হয়নি বলেও মন্তব্য করেন রিজভী।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব  বলেন, শেখ হাসিনারই দাবি করা আন্তর্জাতিক তদন্ত অনুষ্ঠানকল্পে যুক্তরাষ্ট্রের এফবিআই দল ঘটনাস্থল সরেজমিনে তদন্তের পর যখন সেই গাড়িটি পরিদর্শন করতে চেয়েছিল, তা পরিদর্শন করতে দিতে শেখ হাসিনা অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন। কিন্তু কেন এই অস্বীকৃতি? তারও কোনো সুরাহা কাহার আকন্দের তদন্তে হয়নি। ক্ষতিগ্রস্ত হিসেবে এফবিআই দলকে তদন্তে সহায়তা না করায় অবশেষে তারা তাদের তদন্তকার্য অসমাপ্ত রেখেই ফিরে চলে যায়।

সংবাদ সম্মেলনে সারা দেশে প্রায় ১৬ শতাধিক নেতাকর্মীর নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও দাবি করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব। নেতাকর্মীদেরকে গ্রেপ্তারের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে তাদের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি জানান রিজভী।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে