সুসময় ও দুঃসময়ে ভারত বাংলাদেশের পাশে থাকবে : শ্রিংলা

  লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি

০৮ অক্টোবর ২০১৮, ২২:৫২ | অনলাইন সংস্করণ

ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার শ্রী হর্ষ বর্ধণ শ্রিংলা বলেছেন, ‘সুসময়ে ও দুঃসময়ে ভারত বাংলাদেশের পাশে থাকবে। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধারা এবং ভারতীয় সেনারা একসঙ্গে যুদ্ধ করেছিল এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্যে রক্ত দিয়েছিল। আর ওইটাই ছিল ভারতীয়দের জন্যে মহান গর্বের মুহূর্ত।’

গতকাল রোবাবর রাত সাড়ে ৮টায় নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার ইতনা ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামে শ্রী শ্রী দশ অবতার ও মঁনসা দেবীর মন্দিরের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন শ্রিংলা।

শ্রিংলা বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং প্রধানমন্ত্রী ইন্ধিরা গান্ধী ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে একটি শক্তিশালী ভীত বপণ করেছিলেন। বর্তমানে বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে এই সম্পর্ক আরও অটুট।’

ভারতীয় হাই কমিশনার বলেন, ‘কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এবং কাজী নজরুল ইসলামের সাহিত্য কর্মগুলো আমাদের দুই দেশের মানুষের সুখ-দুঃখের কথা বলে। আপনাদের সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন আমাদেরও স্বপ্ন। আমরা অবশ্যই শান্তি ও সম্প্রীতিতে ভারত প্রতিবেশি দেশ হিসেবে সব সময় একে অন্যের পাশে থাকবো। বর্তমানে ভারত ও বাংলাদেশ উন্নয়নের দেশগুলোর মধ্যে নিজেদের স্থান করে নিয়েছে। সম্প্রতি বাংলাদেশ আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধন করেছে। আমরা বাংলাদেশের এই অর্জনে গর্বিত।’

এ সময় শ্রিংলা শারদীয় দুর্গোৎসবের শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ধর্ম যার যার, উৎসব সবার। আমরা সবাই আমাদের উৎসবগুলো একসঙ্গে পালন করি। এই পূজা আমাদের জন্য ভারত বাংলাদেশের জন্য শান্তি, সম্প্রীতি, সুস্থ আনন্দ বয়ে আনুক। ভারত বাংলাদেশের সম্পর্ক চিরদিন অবিচ্ছেদ্য হোক।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শ্রী শ্রী দশ অবতার ও মঁনসা দেবীর মন্দির কমিটির সভাপতি অসিত কুমার সাহার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন, ভারতের বিজেপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য অরুন হালদার, নড়াইলের দায়িত্বপ্রাপ্ত জাতীয় সংসদের নারী সদস্য রোকসানা ইয়াসমিন ছুটি, নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম, ইসকন খুলনার প্রধান উপদেষ্টা নর্থওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. তপ চৈতন্য দাস ব্রহ্মচারী, নড়াইল টাউন কালিবাড়ী মন্দিরের সভাপতি বিজন কুমার সাহা, লোহাগড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুকুল মৈত্র প্রমুখ।

এ ছাড়া নড়াইল জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন বিশ্বাস, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন খান নিলু, লোহাগড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিকদার আব্দুল হান্নান রুনুসহ আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ ও সুশীল সমাজের নেতৃস্থানীয়রা নবনির্মিত শ্রী শ্রী দশ অবতার ও মঁনসা দেবীর মন্দির পরিদর্শন করেন।বিশিষ্ট সমাজসেবী ও ব্যবসায়ী সমেন কুমার সাহার বাড়িতে এই মন্দিরটি নির্মিত হয়েছে। নির্মাণে সময় লেগেছে দুই বছর। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নড়াইল জেলা শাখার সভাপতি মলয় কান্তি নন্দী।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে