নরসিংদীর দুই জঙ্গি আস্তানা ঘেরাও, আইজিপি পৌঁছালেই অভিযান

  নরসিংদী প্রতিনিধি

১৬ অক্টোবর ২০১৮, ১১:০৮ | আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০১৮, ১১:৪২ | অনলাইন সংস্করণ

নরসিংদীর মাধবদী পৌর এলাকা ও শীলমান্দি ইউনিয়নের শেখেরচরে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে দুটি বাড়ি ঘেরাও করে রেখেছে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটসহ নিরাপত্তা বাহিনীর পাঁচটি দল।

এ ঘটনায় নির্দিষ্ট বাড়ি দুটির আশেপাশে ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রাশাসন। ঘটনাস্থলে আছে সোয়াট ও বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিটের পৃথক দুটি দল। সঙ্গে আছে র্যা ব, ঢাকা জেলা পুলিশ ও বগুড়া জেলা পুলিশের সমন্বিত দল।

গতকাল সোমবার রাত ১০টা থেকে আজ মঙ্গলবার সকাল ১০টা পযর্ন্ত টানা ২৪ ঘণ্টা ধরে দুইটি বাড়ি ঘিরে রেখেছে পুলিশ। আজ সকাল সাড়ে ১০টার পর এ অভিযান শুরু হতে পারে বলে জানিয়েছে সিটিটিসির একটি সূত্র

কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম ঘটনাস্থলে উপস্থিত আছেন। পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) জাবেদ পাটোয়ারী ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর পরই অভিযান শুরু হতে পারে।

এর আগে সোমবার বিকেলে জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পাওয়ার পর মধ্যরাত থেকে পুলিশ সদর দপ্তরের এলআইসি শাখা, ডিএমপির কাউন্টার টেররিজম ইউনিট, র‌্যাব ও বগুড়া জেলা পুলিশের সমন্বিত দল বাড়ি দুটি ঘেরাও করে রাখে। ওই সময় পর্যন্ত পুলিশের ধারণা ছিল, বাড়ি দুটিতে ৫ থেকে ৬ জন জঙ্গির অবস্থান থাকতে পারে। তাদের ধারণা, আস্তানা দুটি জেএমবি বা নব্য জেএমবির হতে পারে।

কাউন্টার টেররিজম ইউনিট সূত্রে জানা গেছে, কয়েকদিন ধরেই তাদের কাছে গোয়েন্দা তথ্য ছিল নরসিংদীতে একাধিক জঙ্গি আস্তানা রয়েছে। এ তথ্যের সূত্র ধরে গোয়েন্দা নজরদারির মাধ্যমে গতকাল বিকেলে মাধবদী ও শেখেরচরে সন্দেহভাজন আস্তানা দুটি শনাক্ত করা হয়।

সিটিটিসির এডিসি রহমত উল্লাহ চৌধুরী উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, অভিযানের সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। বাড়ির ভেতরে থাকা জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানানো হবে। তারা এতে সাড়া না দিলে চূড়ান্ত অভিযান চালানো হবে।

রাত সাড়ে ৮টার দিকে নিশ্চিত হওয়া যায় মাধবদীর সাততলা বাড়ির একটি তলা ও শেখের চরে ষষ্ঠতলা বাড়ির একটি তলায় জঙ্গি আস্তানা রয়েছে। রাত সাড়ে ১২টার দিকে বাড়ি দুটি ঘেরাও করা হয়।

অভিযান পরিচালনার কারণে এলাকাদুটির বাসিন্দাদের নিরাপদ দুরত্বে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এছাড়া দুটি এলাকাতেই ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রাশাসন।

কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের একজন কর্মকর্তা জানান, বিকেল থেকেই পুলিশ সদর দপ্তরের এলআইসি ও বগুড়া পুলিশের একটি দলের সঙ্গে কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের সদস্যরা ওই এলাকায় রেকি করে।

নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শিবপুর সার্কেল) থান্ডার খায়রুল হাসান উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, সাত তলা বাড়িটির এক তলা থেকে তিন তলা পর্যন্ত মিততাহুল জান্নাহ হমিলা মাদ্রাসা। আমরা গোপন সূত্রে তথ্য পেয়েছি দুইটি বাড়িতে ৫জন জঙ্গি অবস্থান করছে। এরই ভিক্তিতে পুলিশ ও কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট, সোয়াত, র্যা ব, পুলিশের দুই শতাধিক সদস্য যৌথভাবে এই অভিযান পরিচালনা করছে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে