কামাল হোসেনের আসল চেহারা উন্মোচিত হলো : জয়

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১৬ অক্টোবর ২০১৮, ১১:১০ | আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০১৮, ১৫:৫৯ | অনলাইন সংস্করণ

বিএনপি-জামায়াতের সঙ্গে জোট করার মাধ্যমে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের আসল চেহারা সবার সামনে উন্মোচিত হলো বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।  গতকাল সোমবার রাত ১১টা ২৩ মিনিটে নিজের ফেসবুক পোস্টে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ফেসবুকে জয় লিখেছেন, ‘বিএনপি জামাতের সাথে জোট করার মাধ্যমে কামাল হোসেনের আসল চেহারা সবার সামনে উন্মোচিত হলো। তার এক জোটসঙ্গী বিএনপি ২০১৩ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত নিরীহ মানুষদের জ্যান্ত পুড়িয়ে মেরেছে। তার আরেক সঙ্গী জামাত মুক্তিযুদ্ধের সময় নির্যাতন, ধর্ষণ ও গণহত্যায় জড়িত ছিল। বিএনপি'র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তারেক রহমান আমার মা ও আওয়ামী লীগের উপর গ্রেনেড হামলার দণ্ডপ্রাপ্ত অপরাধী; তাদের সভাপতি খালেদা জিয়াও দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত একজন অপরাধী।’

জয় আরও লিখেন, ‘১/১১ এর সেনা সমর্থিত সরকার আনার পেছনে অন্যতম ভূমিকা পালন করেছিল এই কামাল হোসেন। তার জামাতা যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানোর জন্য মরিয়া হয়ে লড়াই করে গেছেন অনেক বছর আর এখন বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অনবরত মিথ্যাচার করেই যাচ্ছেন। কামাল হোসেন এর মেয়ে ও জামাতা উভয়ই বিদেশে বাংলাদেশ বিরোধী তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন বিদেশীদের বাংলাদেশে হস্তক্ষেপ করানোর উদ্দেশ্যে।’

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা লিখেন, ‘এই ধরনের মানুষদের উপর আমার বিতৃষ্ণা এসে গেছে। তাদের কোনো নৈতিকতা নেই, সততা নেই, নেই বাংলাদেশের জন্য কোনো ভালোবাসা। ক্ষমতার লোভে তারা দুর্নীতিবাজ ও সন্ত্রাসীদের হাত মেলাতে পারে স্বাচ্ছন্দ্যে। তারা দেশপ্রেমিক নয়, তারা বাংলাদেশ বিরোধী।’

জাতীয় ঐক্য গড়ার প্রত্যয় নিয়ে সাবেক রাষ্ট্রপতি একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী (বি. চৌধুরী) ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন কয়েক মাস ধরেই আলাপ-আলোচনা করেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে। তবে নানা নাটকীয়তার পর সর্বশেষ গত শনিবার ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত হয়েছে নতুন জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

জোটের আত্মপ্রকাশ অনুষ্ঠানে ছিলেন না এর অন্যতম উদ্যোক্তা বি. চৌধুরী। শুরুতেই হোঁচট খাওয়ায় অনেকে দ্বিধান্বিত এর দীর্ঘ পথচলায়। আবার অনেকে বলছেন, রাজনীতিতে এটি তেমন প্রভাব ফেলবে না। অবশ্য কেউ কেউ বলছেন, সংসদের বাইরে থাকা বিরোধী দল বিএনপি অনেকটা দুর্বল।  জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন হওয়ায় বিরোধী জোট একটা শক্ত ভিত পেল। এর মাধ্যমে সুষ্ঠু, অবাধ ও অংশীদারিত্বমূলক নির্বাচনের সম্ভাবনাটা জোরালো হয়েছে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে