বিএনপির বিরুদ্ধে ন্যাপ-এনডিপির যত অভিযোগ

প্রকাশ | ১৬ অক্টোবর ২০১৮, ১৬:৪০ | আপডেট: ১৬ অক্টোবর ২০১৮, ১৮:১০

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) ও ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এনডিপি)। আজ মঙ্গলবার বিকেলে গুলশানের ইম্যানুয়েলস ব্যাংকুয়েট হলে আয়োজিত এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেওয়ার হয়। এ সময় বিএনপির বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে ধরে দল দুটি।   

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়েন ন্যাপের চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি। তিনি বলেন, ‘বিএনপির নেতৃত্বে জোটের শরিক হিসেবে আমরা আমাদের সাধ্যমতো অবদান রাখার সচেষ্ট ছিলাম। নিজেদের মতবিরোধ ও মতপার্থক্য থাকলেও জোটের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সব সময়ই ছিলাম আন্তরিক। এমনকি ২০১৪ সালে নির্বাচনে নানা ধরনের লোভনীয় প্রস্তাব থাকার পরও জোটের নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলো জোট কেউ ত্যাগ করেনি। এই ত্যাগকে বিএনপি রাজনৈতিক দল হিসেবে কোনো রকম মূল্যায়ন করেছে বলে আমাদের নিকট কখনো প্রতিয়মান হয়নি। বরং তাদের ভাবখানা এরকম, তারা যাবে কোথায়?’  

জেবেল রহমান গানি বলেন, ‘আমরা স্পষ্টভাবে বলতে চাই, আমাদের কারণে কেউ চাপে থাকুক সেটা আমরা প্রত্যাশা করি না। বিএনপির মনে রাখতে হবে, এই দলগুলো তাদের পাশে বলেই তারা অনেক ব্যর্থতার কিছু ভাগ তাদের দিতে পারেন। না থাকলে তাও পারতেন না।’

ন্যাপের চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমরা বাংলাদেশ ন্যাপ ও এনডিপি সাংবিধানিক ও নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতির পক্ষে। শুধুমাত্র ক্ষমতার পালা বদলের নামে কোনো অশুভ শক্তির ক্ষমতা গ্রহণ করে আবারও দেশকে রাজনীতিশূন্য করার কোনো অপচেষ্টায় অংশগ্রহণ করে, তা একটি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল হিসেবে আমরা প্রত্যাশা করি না।’

ন্যাপ চেয়ারম্যান বলেন, ‘এসব বিষয়ে ২০ দলীয় জোটের প্রধান শরিক বিএনপি সব সময়ই তার শরিকদের অন্ধকারে রাখার অপচেষ্টা গ্রহণ করেছে। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে খুবই কাছাকাছি সময়ে অনুষ্ঠিত হবে বলে প্রতিয়মান। সেই বিষয়েও বিএনপি তার শরিকদের পরিষ্কার অবস্থান ব্যাখ্যা করে না। জোটের বিভিন্ন বৈঠকে জোট শরিকদের মনোনয়নের বিষয়টি সামনে আনতে চাইলেও বিএনপি কৌশলে তা এড়িয়ে যায়। আর ১/১১ কুশিলব, মাইনাস টু ফরমুলা বাস্তবায়নকারীরা যখন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নামে ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে তখন আমরা মনে করি, বিএনপি তার সকল নৈতিক অবস্থা থেকে বিচ্যুত হয়েছে।’