আক্রমণাত্মক প্রশ্ন, মাসুদা ভাট্টিকে 'চরিত্রহীন' বললেন ব্যারিস্টার মঈনুল

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১৭ অক্টোবর ২০১৮, ১২:৩৬ | আপডেট : ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ০০:৪৮ | অনলাইন সংস্করণ

সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে 'চরিত্রহীন' বলে আখ্যায়িত করলেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন। গতকাল মঙ্গলবার রাতে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল একাত্তর টিভির এক লাইভ আলোচনা অনুষ্ঠানে ওই সাংবাদিকের উদ্দেশে তিনি এ মন্তব্য করেন।  

অনুষ্ঠানে উপস্থাপক মিথিলা ফারজানা বলেন, '২০ দলীয় জোটের ঐক্যজোট থেকে গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) ও ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এনডিপি) নামে দুটি দল বের হয়ে গেছে। কারণ তারা বলছে ১/১১ এর যারা কুশীলব, যারা বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে সে সময় মামলা করেছিল, যারা ‌মাইনাস টু ফর্মুলাকে বাস্তবায়নের চেষ্টা করেছে, আজ তারা বিএনপির পাশে।  এ বিষয়ে ইঙ্গিত মনে হয় আপনার দিকে।'

এ সম্পর্কে আপনি কিছু বলতে চান কি না জানতে চাইলে মঈনুল হোসেন বলেন, 'ইলেকশনের সময় আমি ছিলাম না।  ২০০৭ সালের পর আমি চলে আসি। তাহলে হয়তো ইলেকশন এরকম হতো না। কিন্তু ইলেকশনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ দুই তৃতীয়াংশ ভোট পাইলেন।  এরপর আমরা হইলাম কুশীলব, শেখ হাসিনা আপনারা হইলেন পবিত্র লোক। এ বিষয়ে আমি আর আলোচনা করতে চাই না। '

পরে মঈনুল হোসেনকে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টি প্রশ্ন করেন, 'জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে আপনি যে হিসেবে উপস্থিত থাকেন- আপনি বলেছেন আপনি নাগরিক হিসেবে উপস্থিত থাকেন।  কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই বলছেন, আপনি জামায়াতের প্রতিনিধি হয়ে সেখানে উপস্থিত থাকেন।'

মাসুদা ভাট্টির এই আক্রমণাত্মক প্রশ্নে রেগে গিয়ে মঈনুল হোসেন বলেন, 'আপনার দুঃসাহসের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ দিচ্ছি। আপনি চরিত্রহীন বলে আমি মনে করতে চাই। আমার সঙ্গে জামায়াতের কানেকশনের কোনো প্রশ্নই নেই।  আপনি যে প্রশ্ন করেছেন তা আমার জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর।'

পরে 'শিক্ষিত ভদ্রমহিলা হিসেবে' অন্য প্রশ্ন করার আহ্বান জানান ব্যারিস্টার মঈনুল। এ সময় মাসুদা ভাট্টি বলেন, 'আপনি শিবিরের একটি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে বক্তব্য দিয়েছিলেন এবং আপনি সেই অনুষ্ঠানে বলেছেন যে আপনার সঙ্গে শিবিরের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ আছে। সেই বক্তব্য এখন সব জায়গায় দেখানো হচ্ছে।  এ কারণে মানুষ এই প্রশ্ন করছে যে আপনি জামায়াতের হয়ে এখানে উপস্থিত থাকছেন কি না।'

এর জবাবে মঈনুল বলেন, 'আমাকে বাদ দেন।  আচ্ছা, ঠিক আছে আপনি কার প্রভু হিসেবে আসছেন?' তখন মাসুদা ভাট্টি বলেন, 'আমি কোনো দলের নই, বরং সাংবাদিক হিসেবে এসেছি।'

তখন মঈনুল হোসেন বলেন, 'আজকে সাংবাদিকদের কেউ বাকশাল করে, আর কেউ বিএনপি করে।  তাহলে আপনি কি করেন?' পরে এমন প্রশ্ন বাদ রাখার আহ্বান জানান তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক এই উপদেষ্টা।

পরে মাসুদা ভাট্টি তার প্রশ্নে বলেন, 'খালেদা জিয়া আজ যে মামলায় জেল খাটছেন সে মামলাটি আপনি দায়ের করেছিলেন। আপনার সময়ে দায়ের করা হয়েছিল।  এ ব্যাপারে আপনার মতামত কী?'

এ প্রশ্নের জবাবে মঈনুল হোসেন বলেন, 'আজকাল সাংবাদিকরা এমনভাবে দলীয় হয়ে গেছে যে তারা লেখাপড়া জেনে রাজনীতি করে না। আমাদের সময়ে বাববার আমি বলেছি যে দুর্নীতি দমন কমিশন আমাদের থেকে সম্পূর্ণ স্বাধীন ছিল।'

অনুষ্ঠানে নির্বাচনে সাত দফা দাবি দিয়ে যুক্তফ্রন্টের এগিয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে মঈনুল হোসেন বলেন, 'আমাদের দাবি কে মানবে, কে মানবে না এর ওপর নির্ভর করে আমরা দাবি করি নাই। আমরা চেয়েছি দেশে অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। সংসদীয় গণতন্ত্র ভারতসহ অন্য জায়গায় যেভাবে নির্বাচন হয় সেভাবে নির্বাচন হবে।'

সেই নির্বাচনে হারেন বা জেতেন সেটা বড় কথা নয় বলেও মন্তব্য করেন মঈনুল হোসেন।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে