উশৃঙ্খল আচরণের কারণে এর আগেও সতর্ক করা হয়েছিল সুইটিকে

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৫:৪৩ | আপডেট : ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৯:০৫ | অনলাইন সংস্করণ

রিকশাচালককে মারধরের ঘটনায় ঢাকা মহানগর উত্তরের সাত নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের মহিলা সম্পাদিকার পদ থেকে সুইটি আক্তার শিনুকে বহিষ্কার করা হয়েছে।  তবে এবার প্রথম নয়। এর আগেও দলের পক্ষ থেকে তাকে একাধিক বার সতর্ক করা হলেও আচরণ সংশোধন হয়নি।

গতকাল মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর উত্তরের সাত নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী আব্দুল হারুন ও সাধারণ সম্পাদক মো. মকবুল হোসেন তালুকদার স্বাক্ষরিত বহিষ্কারের চিঠিতে এমনটাই বলা হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়, কিছুদিন যাবত দলীয় কর্মকাণ্ডে আপনার ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ ও দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গের জন্য দলের সুনাম বিনষ্ট হয়েছে। এ বিষয়ে আপনাকে বার বার সতর্ক করার পরও আপনার আচরণ সংশোধন হয় নাই বরং আপনার উশৃঙ্খল আচরণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

চিঠিতে আরও বলা হয়, এমতাবস্থায় দলের কার্যনিবার্হী কমিটির জরুরি বৈঠকের সিদ্ধান্ত মোতাবেক আপনাকে সাত নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের মহিলা সম্পাদিকা পদ ও প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে বহিষ্কার করা হলো।

এর আগে মঙ্গলবার বিকেলে ফেসবুকের একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে। সেখানে দেখা যায় এক নারী, এক রিকশাচালকের ওপর চড়াও হয়েছেন। তিনি নিজেই ওই রিকশার যাত্রী ছিলেন। রিকশাচালকের প্যাডেলের গতি পছন্দ নয় ওই নারীর। তাই আরও জোরে চালাতে নির্দেশ দেন। কিন্তু রিকশাচালক জানান, এর চেয়ে বেশি জোরে চালাতে পারবেন না। এতেই বিপত্তি হয় চালকের। ক্ষিপ্ত নারী চড়াও হন চালকের ওপর। সবার সামনে রিকশা থেকে নেমে চালকের গায়ে হাতও তোলেন তিনি। আবারো রিকশায় উঠে হাতের ব্যাগ দিয়ে চালককে মারতে উদ্যত হন। ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে লাথি ছুঁড়তেও দেখা যায়। অকথ্য ভাষায় গালিগালাজও হয়।

ঘটনার ভিডিও দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, অনেক পথচারী ওই নারীর আচরণের প্রতিবাদ করছেন। তবে কোনো প্রতিবাদেই নিজের অবস্থান থেকে সরেননি তিনি। এক পর্যায়ে প্রবীণ এক পথচারীর ওপর হামলা চালান ওই নারী।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে