ছেলে হত্যার খবর শুনে মায়ের মৃত্যু!

  গোবিন্দগঞ্জ প্রতিনিধি

১১ জানুয়ারি ২০১৯, ২১:১৪ | আপডেট : ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ২১:১৭ | অনলাইন সংস্করণ

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় ছেলের মৃত্যুর খবর শুনে মায়ের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে সৈয়দ আপেল মাহমুদ (৩২) নামের ওই ছেলের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।  

আজ শুক্রবার ছেলের ‍মৃত্যুর খবর শুনে তার মা ক্যানসারে আক্রান্ত আয়েশা বেগম (৫৫) হৃদযন্ত্রেরক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান। 

গতকাল রাত ১১টার দিকে কাহালুর বারমাইল-নামুজা সড়কের সাঁতারপুকুর নামক স্থানে একটি রাস্তা থেকে আপেল মাহমুদের লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ।

লাশটি উদ্ধার করার পর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ডেভিড হিমাদ্রি বর্মা সাংবাদিকদের জানান, নিহতের গলার দাগ দেখে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা যাচ্ছে, পাজামার ফিতা গলায় পেচিয়ে তাকে হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডের মূল রহস্য উদঘাটনে কাজ চলছে।

কাহালু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শওকত কবির জানান, গতকাল রাত সোয়া ১০টার দিকে স্থানীয় চৌকিদারের মাধ্যমে খবর পেয়ে আপেলের লাশ উদ্ধার করা হয়। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

নিহত আপেল গাইবান্ধার গোবিন্দঞ্জের ইনডেক্স বিজনেস কো-অপারেটিভ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এ ছাড়া আর্থিক লেনদেন, ময়দা মিল ও আমদানী-রপ্তানিকারকসহ বেশ কয়েকটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক ছিলেন তিনি। তার চাচা আশরাফুল ইসলাম মানিকসহ অন্যান্য স্বজনরা জানান, এতকিছু থাকলেও তার কোনো শত্রু ছিল না।

গতকাল সন্ধ্যার দিকে বগুড়ার ঠেঙ্গামারা টিএমএসএস মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ক্যান্সারে আক্রান্ত মাকে দেখতে যান আপেল। হাসপাতালে আয়েশা বেগমের সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ সময় কাটান তিনি। পরে রাত ৯টার দিকে হাসপাতাল থেকে বের হন তিনি। রাতে এ ঘটনার পর দুপুরে আয়েশা বেগমকে ছেলের ব্যাপারে জানানো হলে তিনি মেনে নিতে পারেননি। হৃদযন্ত্রেরক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান তিনি।

এ ঘটনায় আপেলের বড় চাচা সৈয়দ আবদুল করিম বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে