একদিকে সড়ক বন্ধ, অন্যদিকে যানজটে নাকাল নগরবাসী

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১০ জানুয়ারি ২০১৭, ১৮:১৪ | আপডেট : ১০ জানুয়ারি ২০১৭, ১৯:১৬ | অনলাইন সংস্করণ

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের জনসভার কারণে তীব্র যানজট দেখা দিয়েছে রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে। মঙ্গলবারের এই সমাবেশের কারণে পুলিশ কয়েকটি সড়ক বন্ধ করে দেওয়ায় গাড়ি না পাওয়ার দুর্ভোগেও পড়েতে হচ্ছে নগরবাসীকে।

এদিকে, সমাবেশের জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে নেওয়া হয় কঠোর নিরাপত্তাব্যবস্থা। সভাস্থলের আশপাশের কয়েকটি সড়কে নিয়ন্ত্রণ করা হয় যান চলাচল। কাকরাইল ক্রসিং, মৎস্য ভবন ক্রসিং, কদম ফোয়ারা ক্রসিং ও শাহবাগ ক্রসিং দিয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের শিখা চিরন্তন ফটক এবং ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের ফটক দিয়ে কাউকে সমাবেশে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। উদ্যানের পশ্চিম দিকে ছবিরহাট, টিএসসি, কালীমন্দির ও তিন নেতার মাজারের ফটক দিয়ে জনসভায় নেতা-কর্মীরা ঢুকেছেন।

অন্যদিকে, মঙ্গলবার সকাল থেকে রাজধানীর চিত্র অন্যদিনের মতো থাকলেও দুপুর ১টার দিকে পাল্টে যায় দৃশ্যপট; যখন পুলিশ বিভিন্ন সড়ক বন্ধ করে দেয়। দুপুর ১টার দিকে ফার্মগেটমুখী গাড়ি চলাচল পুলিশ বন্ধ করে দেয় বিজয় সরণির মোড়ে ব্যারিকেড দিয়ে। দুপুর ২টার পর থেকে জিপিও মোড় জিরো পয়েন্টে, প্রেস ক্লাব থেকে পল্টন মোড়, কাকরাইল মসজিদ মোড় থেকে মৎস্য ভবনমুখী রাস্তা, সোনারগাঁ থেকে শাহবাগ পর্যন্ত রাস্তা, এলিফ্যান্ট রোডের বাটা সিগন্যাল মোড় থেকে শাহবাগ এবং দোয়েলচত্বর থেকে শাহবাগ এবং হাই কোর্টের মাজার গেট পর্যন্ত সড়ক বন্ধ করে দেওয়া হয়।ফলে এই গন্তব্য যাদের, তাদের গণ পরিবহন না পেয়ে হেঁটেই চলতে হচ্ছে।  

অন্যদিকে সদরঘাট থেকে গুলিস্তান, মতিঝিল থেকে পল্টন, আসাদ গেট থেকে এলিফ্যান্ট রোড, ফার্মগেট- খামারবাড়ি থেকে বিজয় সরণি, মগবাজার থেকে কাকরাইল সড়কগুলোতে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে।

দীর্ঘক্ষণ আটকে থেকে বাস থেকে নেমে পড়া বীমা কর্মকর্তা মনির হোসেন জানান, দুপুরে মহাখালী থেকে মতিঝিল রওনা হয়ে সাত রাস্তা এলাকায় প্রায় ১ ঘণ্টা বাসে বসে থাকার পর হেঁটে মতিঝিলে চলে আসেন তিনি।

পুরান ঢাকার ব্যবসায়ী সুভাষ গাবতলীর উদ্দেশে বাহদুর শাহ পার্ক থেকে যাত্রা শুরু করলেও পরে রায়সাহেব বাজারে নেমে পড়েন। তিনি বলেন, ৫০০ গজের রাস্তা যেতে আধা ঘণ্টা সময় লাগায় পরে নেমে পড়েছি।

সকাল থেকেই যানজটে নাকাল ছিল নগরবাসী। ফার্মগেট, শাহবাগ, সেগুনবাগিচা, তোপখানা থেকে মতিঝিল, বিজয় সরণি, মহাখালী, উত্তরাসহ নগরের বেশ কয়েকটি এলাকায় ছিল তীব্র যানজট। এতে দুর্ভোগ পোহাতে হয় যাত্রীদের।

ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণকক্ষ থেকে বলা হয়, রাজধানীর প্রায় সব এলাকাতেই ছিল তীব্র যানজট। শাহবাগের দিকে চাপটা ছিল বেশি।

ট্রাফিক পুলিশের একাধিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন, শোভাযাত্রার কারণে যানজটে ফার্মগেট এলাকা পুরোপুরি অচল হয়ে পড়ে। ফলে ঢাকার ভেতরে গাড়ি ঢুকতে পারেনি। রাজধানীর বাংলামোটরে আবদুল কাইয়ুম নামের এক ব্যবসায়ী বলেন, ট্রাফিক বিভাগের উচিত বড় বড় রাজনৈতিক দলের মিছিল, শোভাযাত্রা ও সমাবেশের আগে কর্মসূচি সম্পর্কে গণমাধ্যমে নগরবাসীকে জানানো। তাহলে সবাই সতর্ক হয়ে চলাফেরা করতে পারবেন। এভাবে কষ্টের কোনো মানে হয় না।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে