রাউধার মৃত্যু নিয়ে বাবার অভিযোগ

‘বাবা নয়, চিকিৎসক হিসেবে বলছি, এটা হত্যাকাণ্ড’

কলেজ কর্তৃপক্ষ ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে চায়

  নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী

২১ এপ্রিল ২০১৭, ২১:২৯ | অনলাইন সংস্করণ

মালদ্বীপের নাগরিক ও রাজশাহী ইসলামি ব্যাংক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিক্ষার্থী আন্তর্জাতিক মডেল রাউধার বাবা ড. আতিফ আবারো অভিযোগ করেছেন, তার মেয়ে আত্মহত্যা করেনি। তাকে খুন করা হয়েছে। এখন মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজশাহী প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়ের সময় তিনি এ অভিযোগ করেন।

আতিফ বলেন, তার মেয়ের গলায় শ্বাসরোধ করে হত্যার চিহ্ন রয়েছে। এক্সরে করা হলে হত্যার চিহ্নগুলো আরো পরিস্কার হতো। কিন্তু তা করা হয়নি। কারণ মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ বিষয়টি ধামাচাপা দিতে চেয়েছে। কলেজকে সহযোগিতা করেছে পোস্ট মর্টেম পরিচালনাকারী চিকিৎসকরা।

তিনি আরো বলেন, রাউধার সহপাঠী সিরাত এই ঘটনার সাথে জড়িত। কারণ রাউধার মৃত্যুর এক ঘণ্টা পর তার ইনস্টাগ্রাম হ্যাক করা হয়েছে। সেখানকার কললিস্ট থেকে সিরাতের কথোপকথন মুছে ফেলা হয়েছে। সিরাতের কাছে রাউধার ইনস্টাগ্রাম পাসওয়ার্ড ছিলো। তা না হলে এটি সম্ভব নয়। সিরাত রাউধার মৃত্যুর এক সপ্তাহ আগে তাকে ঘুমের ওষুধও খাইয়েছিল।

তবে কেন রাউধাকে হত্যা করা হলো প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা বের করার দায়িত্ব পুলিশের। আমি একজন বাবা নয়, চিকিৎসক হিসেবে বলছি, এটা হত্যাকাণ্ড।

গত ২৯ মার্চ দুপুরে রাজশাহী ইসলামী ব্যাংক মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রী হোস্টেলের ২০৯ নম্বর কক্ষ থেকে রাউধার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে এ ঘটনায় ওই দিনই একটি অপমৃত্যুর মামলা করা হয়। রাউধার বাবা মোহাম্মদ আথিফ ও মা আমিনাথ মুহারমিমাথসহ পরিবারের লোকজন দাবি করতে থাকেন, জার্মানিতে থাকা রাউধার বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে সিরাত প্রেম করতে চেয়েছিল। এতে রাউধা বাধা দেওয়ায় তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে