রায়পুরে আ.লীগ-স্বেচ্ছাসেবকলীগ সংঘর্ষে আহত ৪

  মো. জহির উদ্দিন, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি

১৯ জুন ২০১৭, ১৭:৪৫ | অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে উপজেলার ৪নং সোনাপুর ইউনিয়নে কর্মসৃজন প্রকল্প ও ভিজিএফ কার্ড ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে ইউনিয়ন আ’লীগ নেতা ও ইউপি সদস্য জসিম উদ্দিন এবং জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা রিয়াজ উদ্দিনের মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরে স্থানীয় লোকজন জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ও ইউপি সদস্যের ভাই বিয়াজ উদ্দিনকে উদ্ধার করে সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করে। এসময় ৩ ইউপি সদস্যসহ ৪ জন আহত হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে রোববার বিকেলে উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়ন পরিষদ কক্ষের ভিতরে। এ ঘটনায় সোমবার দুপুরে আহত স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা বাদী হয়ে অভিযুক্ত ইউপি সদস্য ও ইউনিয়নের আ’লীগ সহ-সভাপতি জসিম উদ্দিনকে আসামি করে রায়পুর থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। ঘটনার পর থেকে ইউপি সদস্য, ইউনিয়নবাসী ও দলীয় নেতা কর্মীদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

চিকিৎসাধীন স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা রিয়াজ উদ্দিন তার ভাই ১নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য বিল্লাল হোসেন না থাকায় নিজেকে ভারপ্রাপ্ত ইউপি সদস্য দাবী করে বলেন, রোববার দুপুরে ইউনিয়ন পরিষদে সকল সদস্যদের নিয়ে কর্মসৃজন প্রকল্প ও ভিজিএফ কার্ড গ্রামবাসীদের মাঝে বিতরণ নিয়ে বৈঠক চলছিল। এ সময়ে বাইরে থেকে এসে ৮নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন আ’লীগ সহ-সভাপতি জসিম উদ্দিন সকল সদস্যদের অশ্রাব্য ভাষায় গালমন্দ করে এবং ভিজিএফ কার্ড সকল সদস্যদের মাঝে ভাগবাটোয়ারার নির্দেশ দেয়। তখন অপর ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি আব্বাস উদ্দিন পাটোয়ারী এর প্রতিবাদ করেন। এতে উত্তেজিত হয়ে জসিম উদ্দিন হামলা চালিয়ে আমাকে আহত করে। এসময় অপর আরো দুইজন ইউপি সদস্যসহ মোট ৩ জন আহত হয়। পরে অন্যান্য ইউপি সদস্যরা জসিম উদ্দিনকে ধাওয়া করলে সে পালিয়ে যায়।

ইউপি সদস্য ও ইউনিয়নের আ’লীগ সহ-সভাপতি জসিম উদ্দিন বলেন, রিয়াজ ইউনিয়ন পরিষদের কোনো সদস্য নয়। সে তার ভাই ইউপি সদস্য বিল্লাল হোসেনের অনুপস্থিতিতে নিজেকে ভারপ্রাপ্ত সদস্য দাবি করে প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করে যা সম্পূর্ণ আইন বিরোধী। তার ভাই ইউপি সদস্য হওয়ার সুবাদে সে নিজে ভাইয়ের প্রতিনিধি হয়ে বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ নিয়ে অনিয়ম করে আসছে। আমি প্রতিবাদ করায় তার সাথে ৩/৪ জন ইউপি সদস্য একত্রিত হয়ে পরিকল্পিত ভাবে আমার উপর হামলা চালিয়ে ধাওয়া করে। আমি এ অন্যায়ের বিচার চাই।

চিকিৎসার জন্য ঢাকায় অবস্থানরত ৪নং সোনাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট ইউসুফ জালাল কিসমত মোবাইল ফোনে এ প্রতিনিধিকে জানান, রিয়াজের ভাই বিল্লাল হোসেন ইউপি সদস্য। রিয়াজ ইউনিয়ন পরিষদের কিছুই না। সে একজন সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক। সে অন্যায় ও বে-আইনীভাবে জোরপূর্বক তার ভাইয়ের অনুপস্থিতিতে নিজেকে ভারপ্রাপ্ত ইউপি সদস্য দাবি করে প্রভাব বিস্তারের চেষ্টায় লিপ্ত। সে প্রায়ই ইউনিয়ন পরিষদে ঝামেলার সৃষ্টি করে। আমি চিকিৎসার জন্য ঢাকায় আছি। ফিরে এসে ঘটনাটির বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

রায়পুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) একেএম আজিজুর রহমান মিয়া বলেন, এ ঘটনায় আহত রিয়াজ নামের একজন বাদী হয়ে সোনাপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য জসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। ঘটনাটি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে