ভয়ে নিজের আঁকা বঙ্গবন্ধুর ছবি লুকিয়ে রেখেছিল খোকনের ছেলে

  অনলাইন ডেস্ক

২১ জুলাই ২০১৭, ১২:৪৫ | আপডেট : ২১ জুলাই ২০১৭, ১৩:৩২ | অনলাইন সংস্করণ

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি বিকৃত করে কার্ড ছাপানোর অভিযোগে বরগুনার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তারের ঘটনায় ব্যাপক সমালোচনার পাশাপাশি এর নেতিবাচক প্রভাব শিশুমনেও পড়তে শুরু করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপ-প্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকনের একটি স্ট্যাটাসে এমনই ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে খোকন জানান, মামলার খবর জানতে পেরে তার ছেলে অঝর ভয়ে নিজের আঁকা ছবিটি লুকিয়ে ফেলেছিল। পরে মামলাকারী ব্যক্তিটি দুষ্টু- এই কথা তাকে বুঝিয়ে ছবিটি তার পড়ার টেবিলে আবার তোলা হয়েছে।

ফেসবুক স্ট্যাটাসে আশরাফুল আলম খোকন লেখেন-  
"আমার ৮ বছরের ছেলে অঝর তার নিজের হাতে আঁকা বঙ্গবন্ধুর ছবিটি ভয়ে লুকিয়ে ফেলেছিল। আরো কয়েকটি ছবির সাথে বঙ্গবন্ধুর ছবিটিও তার পড়ার টেবিলে ছিল। আজ বাসায় এসে সে প্রথমে এই কাজটি করেছে । তার ধারণা এই ছবির জন্য পুলিশ তার বাবাকে ধরে নিয়ে যেতে পারে।

আজ সে মায়ের সাথে ডাক্তারের কাছে গিয়েছিলো। সেখানে সে আলোচনা শুনেছে বঙ্গবন্ধুর ছবি ঠিকমতো না হওয়ায় পুলিশ একজনকে ধরে নিয়ে গেছে। ছবিটি লুকানোর অবশ্য যথেষ্ট কারণ আছে।

অঝরের ধারণা তার নিজের চুলগুলোই সবচেয়ে সুন্দর। তাই আঁকার সময় সে বঙ্গবন্ধুর ছবির মধ্যে নিজের চুলের স্টাইলটি প্রায়ই যুক্ত করে দেয়। আমি কখনোই এটাকে বিকৃত হিসাবে দেখিনি। বরং ভালোই লেগেছে যে আমার অবুঝ ছেলেটি বঙ্গবন্ধুকে তার মতোই সুন্দর করে দেখে। বিকৃত করার জন্য নিজের চুলের স্টাইলটি যুক্ত করেনা।

আমি বাসায় এসে তাকে বুঝিয়ে আবার বঙ্গবন্ধুর ছবিটি পড়ার টেবিলে নিয়ে এসেছি। তাকে আমার বলতে হয়েছে , যারা ওই কাজটি করেছে তারা দুষ্ট লোক।"

উল্লেখ্য, গত ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে ১৭ মার্চ বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলা প্রশাসন শিশু শিক্ষার্থীদের নিয়ে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ নামে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করেন তৎকালীন নির্বাহী কর্মকর্তা গাজী তারেক সালমান। চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার পুরস্কৃতদের হাতে আকা ছবি ব্যবহার করে ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণ পত্র ছাপানোর ঘোষণা দেয়া হয়েছিল।

সে অনুযায়ী প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান পাওয়া জ্যোতি মণ্ডলের ছবিটি আমন্ত্রণপত্রের কভারে এবং অদ্রিজা করের দ্বিতীয় ছবিটি ব্যবহার করা হয় আমন্ত্রণপত্রের পেছনের পাতায়।

বরিশাল আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক ও জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি সৈয়দ ওবায়েদ উল্লাহ সাজু ইউএনও (বর্তমানে বরগুনায় নিযুক্ত) গাজী তারিক সালমানের বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃতির অভিযোগে মামলা করেন। এ মামলায় গত বুধবার সকালে বরিশালের একটি আদালতে হাজির হলে ইউএনওকে প্রথমে জেল হাজতে পাঠান বিচারক। পরে আদালতে ছবি উপস্থাপনের পর দুপুরে তাকে জামিন দেওয়া হয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে