• অারও

স্বল্প মেয়াদী ও নন-ফান্ডেড দায় তদারকি করবে বাংলাদেশ ব্যাংক

  নিজস্ব প্রতিবেদক

০৯ জানুয়ারি ২০১৮, ২০:৩২ | অনলাইন সংস্করণ

দেশের ব্যাংকগুলোর স্বল্পমেয়াদি তহবিল নিয়মিত তদারকি করবে বাংলাদেশ ব্যাংক। এখন থেকে প্রতি ১৫দিন পরপর ব্যাংকগুলোর ‘হোলসেল বরোয়িং’ তথা স্বল্প মেয়াদি তহবিলের তথ্য দিতে হবে। আর ‘কমিটমেন্ট’ বা নন-ফান্ডেড দায়ের বিষয়ে প্রতি মাসের তথ্য পাঠাতে বলা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করে ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো হয়।

সূত্র জানায়, ব্যাংকগুলো তহবিলের প্রয়োজনে কলমানি মার্কেট (আন্তব্যাংক ধার ব্যবস্থা) বা অন্য কোন ব্যাংক থেকে স্বল্প মেয়াদে অর্থ ধার নেয়। এটি ধারগ্রহণকারী ব্যাংকের জন্য এক ধরনের দায়-দেনা। এছাড়া আমদানি-রপ্তানী কার্যক্রমে ঋণপত্র (এলসি) বা বিলের বিপরীতে স্বীকৃতি (কমিটমেন্ট) প্রদান করে ব্যাংক। ওই স্বীকৃতি দেওয়া বিল অন্য ব্যাংকে বন্ধক রেখে গ্রাহক ঋণ নিতে পারেন। এটিও স্বীকৃতিদাতা ব্যাংকের জন্য এক ধরনের দায়। এটির সঙ্গে সরাসরি যেহেতু টাকা দিতে হয় না এজন্য এটি নন-ফান্ডেড দায়। কোন কারণে গ্রাহক অর্থ ফেরত না দিলে স্বীকৃতিদাতা ব্যাংকই ওই অর্থ ফেরত দিতে বাধ্য।
 
সার্কুলারে বলা হয়েছে, স্বল্পমেয়াদি তহবিলের ওপর ব্যাংকের নির্ভরশীলতা কমানো এবং স্থিতিপত্র বহির্ভুত আনুষঙ্গিক দায় ও প্রতিশ্রুত তথা নন-ফান্ডেড ঋণের সর্বোচ্চ সীমার বিষয়ে একটি নীতিমালা রয়েছে। ২০১৬ সালে জারি করা দায়-সম্পদ ব্যবস্পাপনা (এএমএল) শীর্ষক ওই নীতিমালায় ‘হোলসেল বোরোয়িং’ এবং ‘কমিটমেন্ট’ সংক্রান্ত বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়। এখন এ বিষয়ে কার্যকর তদারকি করার লক্ষ্যে ব্যাংকগুলোকে থেকে দিতে হবে।

নির্দেশনা অনুযায়ী, হোলসেল বরোয়িং বিষয়ে প্রতি মাসের ১ থেকে ১৫ তারিখ পর্যন্ত প্রথম ১৫দিনের রিপোর্ট পাঠাতে হবে। আর ১৬ থেকে ৩০ তারিখের জন্য দ্বিতীয় রিপোর্ট পাঠাতে হবে। প্রতিবারই ১৫দিন শেষ হওয়ার তিন দিনের মধ্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে রিপোর্ট পাঠাতে হবে। আর কমিটমেন্ট বিষয়ে প্রতি মাসে একবার তথ্য দিতে হবে। এক্ষেত্রে মাস হওয়ার ৫দিনের মধ্যে তথ্য পাঠাতে বলা হয়েছে। সার্কুলারের সঙ্গে সংযুক্ত নির্দিষ্ট ছক অনুযায়ী এসব তথ্য পাঠাতে বলা হয়েছে।

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে