আঞ্চলিক সম্মেলনে বক্তারা

অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির জন্য কানেকটিভিটি বিশাল ভূমিকা রাখতে পারে

  কূটনৈতিক প্রতিবেদক

০৪ জুলাই ২০১৮, ১৯:৫৫ | আপডেট : ০৪ জুলাই ২০১৮, ২০:০৬ | অনলাইন সংস্করণ

ছবি : আমাদের সময়

দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির জন্য কানেকটিভি বিশাল ভূমিকা রাখতে পারে। আর দক্ষিণ এশিয়ায় আঞ্চলিক যোগাযোগ বা কানেকটিভিটির চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় রাজনৈতিক সদিচ্ছা জরুরি। আজ বুধবার রাজধানীর বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ (বিআইআইএসএস) মিলনায়তনে আয়োজিত এক আঞ্চলিক সম্মেলনে বিশেষজ্ঞরা এ মত প্রকাশ করেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এই অঞ্চলের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির জন্য চীনের ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড এবং বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত ও নেপাল (বিবিআইএন) উদ্যোগ একটি বিশাল ভূমিকা রাখতে পারে। ‘দক্ষিণ এশিয়ার জন্য বিআরআই ও বিবিআইএন উদ্যোগের গুরুত্ব’ শীর্ষক দুই দিনব্যাপী এই আঞ্চলিক সম্মেলনের আয়োজন করে বিআইআইএসএস ও কোসাট।

দুইদিনব্যাপী এই সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন- পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (দ্বিপীয়) কামরুল আহ্সান। তিনি বলেন, ‘দক্ষিণ ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া অঞ্চলে বাংলাদেশ ভৌগোলিকভাবে একটি গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে রয়েছে। সে কারণে আমরা এই দুই অঞ্চলের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছি। বিবিআইএন উদ্যোগের পাশাপাশি আমরা বিআরআই উদ্যোগও বাস্তবায়নে কাজ করে চলেছি।’

সম্মেলনের উম্মুক্ত আলোচনায় অংশ নিয়ে সাবেক রাষ্ট্রদূত তারিক এ করিম বলেন, ‘বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সম্পর্কের উন্নয়ন হয়েছে বলেই বিবিআইএন উদ্যোগ নেওয়া সম্ভব হয়েছে। এই উদ্যোগের ফলে ভারত, নেপাল, ভুটান ও বাংলাদেশের মধ্যে আঞ্চলিক যোগাযোগ ও বাণিজ্য বাড়বে।’

ড. নিশ্চল এন পান্ডে বলেন,  ‘বিআরআই ও বিবিআইএন উদ্যোগ এই অঞ্চলের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই উদ্যোগ বাস্তবায়ন হলে আঞ্চলিক যোগাযোগ ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন আসবে। তাতে এই অঞ্চলের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিও হবে।’

দীপঙ্কর ব্যানার্জি বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ফোরাম সার্কের মৃত্যু ঘটতে চলেছে। তবে আঞ্চলিক যোগাযোগ আমাদের যেভাবেই হোক বাড়াতে হবে। আঞ্চলিক যোগাযোগ বাড়ানো ছাড়া বাণিজ্য বাড়ানো সম্ভব নয়। এছাড়া যোগাযোগ বাড়ানোর লক্ষ্যে রাজনৈতিক সদিচ্ছাও জরুরি। কাল সম্মেলনের শেষ দিনেও আঞ্চলিক কানেকটিভি নিয়ে বক্তব্য দেন বিশেষজ্ঞরা।

সম্মেলনে বক্তব্য দেন- নেপালের সাবেক বাণিজ্য সচিব পুরুষোত্তম ওঝা, রিজিওনাল সেন্টার ফর স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজের নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক গামিনী কিরাওয়ালা, ভারতের ফোরাম ফর স্ট্র্যাটেজিক ইনিশিয়েটিভের সদস্য মেজর জেনারেল (অব.) দীপঙ্কর ব্যানার্জি, নেপালের সেন্টার ফর সাউথ এশিয়ান স্টাডিজের পরিচালক ড. নিশ্চল এন পান্ডে প্রমুখ।

সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য দেন- বিআইআইএসএস চেয়ারম্যান মুন্সী ফয়েজ আহমেদ, মহাপরিচালক মেজর জেনারেল এ কে এম আবদুর রহমান, সিপিডির অনারারি ফেলো ড. মোস্তাফিজুর রহমান, সাবেক পররাষ্ট্র সচিব তৌহিদ হোসেন, বিআইআইএসএস’র গবেষণা পরিচালক ড. মাহফুজ কবীর প্রমুখ।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে