‘আন্দোলন করে ডাকসু আদায় করতে হবে’

  ঢাবি প্রতিবেদক

১৩ ডিসেম্বর ২০১৭, ২১:০৭ | আপডেট : ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭, ২১:১০ | অনলাইন সংস্করণ

‘দীর্ঘ ২৭ বছর ধরে ডাকসু নির্বাচনসহ অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ নির্বাচন হচ্ছে না। ডাকসু নির্বাচনের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বারবার প্রতিশ্রুতি দেয়। কিন্তু আমরা বুঝেছি এ প্রতিশ্রুতিতে কাজ হবে না। আন্দোলনের মাধ্যমে ডাকসু নির্বাচন আদায় করতে হবে।’

আজ বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে ডাকসুসহ সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচন দেওয়ার দাবিতে আয়োজিত উন্মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে ছাত্র নেতারা ডাকসুর পক্ষে তাদের মতামত তুলে ধরেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মনসুর, ডাকসুর সাবেক সাধারণ সম্পাদক ডা. মোস্তাক হোসেন, মোর্শেদ আলী, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আনোয়ার হোসেন, রাকসুর সাবেক ভিপি রাগীব হাসান মুন্না, ডাকসুর দাবিতে সদ্য অনশন থেকে উঠা ওয়ালিদ আশরাফসহ ছাত্রফ্রন্ট, ছাত্র ফেডারেশনের নেতাকর্মীবৃন্দ।

অনুষ্ঠানে মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, ডাকসু নির্বাচন শুধু নেতা তৈরির জন্য প্রয়োজন এ কথা বলা হয়। কিন্তু এ কথার মধ্য দিয়ে সংকীর্ণতা ফুটে উঠে। ছাত্রদের মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্যই মূলত ডাকসু নির্বাচন।

তিনি বলেন, ডাকসু দাবিতে ২৭ বছর অপেক্ষা করতে করতে ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে গেছে। প্রশাসন যদি অবিলম্বে  ডাকসু নির্বাচন না দেয় তাহলে তাদেরকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে আমরা আমাদের মতো করে ডাকসু নির্বাচনের আয়োজন করব। এসময় তিনি ছাত্র নেতৃবৃন্দকে এ পথে অগ্রসর হওয়ার আহ্বান জানান।

সুলতান মনসুর বলেন, বর্তমানের ৮০ শতাংশ শিক্ষার্থীরাই ডাকসুর মানে জানে না। বিগত ২৭ বছর ধরে ডাকসুর নামে বরাদ্দকৃত অর্থ খরচ করা হয়েছে। এর জন্য একদিন জবাবদিহি করতে হবে। এসময় তিনি ছাত্র নেতৃবৃন্দকে জনমত সৃষ্টি করে ডাকসু নির্বাচনের আন্দোলনের জন্য আহ্বান জানান।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে