অরিত্রির আত্মহত্যা : ভিকারুননিসার শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ চলছে

  নিজস্ব প্রতিবেদক

০৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১২:১১ | আপডেট : ০৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৩:০৩ | অনলাইন সংস্করণ

বাবা-মাকে অপমান করায় ভিকারুননিসার নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় স্কুলের অধ্যক্ষের পদত্যাগের দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মতো বিক্ষোভ করছে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা।  

আজ বুধবার সকাল থেকেই অধ্যক্ষের পদত্যাগের দাবিতে স্কুলের মূল ফটকে অবস্থান নিয়ে এ কর্মসূচি পালন করছেন তারা।আজকের কর্মসূচিতে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীরাও অংশগ্রহণ করছে বলে জানা গেছে।

বিক্ষোভকারীরা বলছেন, শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাস অনুযায়ী তিনদিনের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট দিয়ে দোষীদের বিচারের আওতায় আনতে হবে। এ সময় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা অধ্যক্ষ ও গভর্নিংবডির পদত্যাগের দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন। এটি একটি হত্যাকাণ্ড উল্লেখ করে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। অধ্যক্ষের ভর্তি-বাণিজ্যের কারণে তার শাস্তিও দাবি করেন তারা।

অরিত্রির বিরুদ্ধে স্কুল কর্তৃপক্ষ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নকলের অভিযোগ এনেছিল। এজন্য অরিত্রির মা-বাবাকে ডেকে নেন ভিকারুননিসার অধ্যক্ষ। তাদের ডেকে মেয়ের সামনেই অপমান করে বলেন, সিদ্ধান্ত হয়েছে অরিত্রিকে নকলের অভিযোগে প্রতিষ্ঠান থেকে বের করে দেওয়া হবে। এ অপমান সইতে না পেরে বাসায় এসে অরিত্রি আত্মহত্যা করে।

পুলিশ ও পরিবারের তথ্য অনুযায়ী, সোমবার বেলা সাড়ে ১২টায় রাজধানীর শান্তিনগরে সাততলা ভবনের সপ্তম তলায় নিজ ফ্ল্যাটের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় অরিত্রিকে পাওয়া যায়। এর পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হলে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।  ওই ছাত্রীর গ্রামের বাড়ি বরগুনা সদরে।  অরিত্রির বাবা দিলীপ কুমার একজন সিএন্ডএফ ব্যবসায়ী।

এদিকে এ ঘটনায় গতকাল রাজধানীর পল্টন থানায় মামলা করেছেন অরিত্রির বাবা দিলীপ অধিকারী। মামলায় কলেজের অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, শাখাপ্রধান জিনাত আরা ও শ্রেণিশিক্ষক হাসনা হেনাকে আসামি করা হয়েছে।  পল্টন থানার উপপরিদর্শক সুজন তালুকদার জানান, মঙ্গলবার (গতকাল) রাত ৮টার পর মামলাটি করা হয়েছে।

এ ছাড়া স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি গোলাম আশরাফ তালুকদার গতকাল সাংবাদিকদের জানান, মর্মান্তিক এ আত্মহত্যার ঘটনায় ওই স্কুলের মূল শাখার প্রধান জিন্নাত আরাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে এবং সাত দিনের মধ্যে তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

অন্যদিকে অরিত্রীর আত্মহত্যার ঘটনাকে হৃদয়বিদারক ও বাজে দৃষ্টান্ত বলে পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ। এ ছাড়া ঘটনা তদন্তে একটি জাতীয় কমিটি গঠন করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে আত্মহত্যার মতো ঘটনা রোধে কমিটিকে জাতীয় নীতিমালা প্রণয়নের নির্দেশনাও দেন আদালত। এক মাসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে কমিটিকে।

অরিত্রির আত্মহত্যার ঘটনায় বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ গতকাল মঙ্গলবার হাইকোর্টের পৃথক দুটি বেঞ্চের নজরে আনেন আইনজীবীরা। এ ছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকেও ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

এদিকে বিক্ষোভ চলাকালে গতকাল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটিতে যান শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তার কাছেও ক্ষোভ প্রকাশ করেন অভিভাবক ও শিক্ষাথীরা। এ সময় ন্যায়বিচারের দাবিতে শিক্ষামন্ত্রীর গাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা হয় কিছু সময়। শিক্ষামন্ত্রী গাড়ি থেকে নেমে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও ন্যায়বিচারের আশ্বাস দিয়ে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় মন দেওয়ার আহ্বান জানান।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে