ভিকারুননিসার সব শাখার কার্যক্রম স্থগিত

  নিজস্ব প্রতিবেদক

০৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৩:১০ | আপডেট : ০৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৫:১২ | অনলাইন সংস্করণ

ভিকারুননিসা স্কুল অ্যান্ড কলেজের সব শাখার ক্লাস ও পরীক্ষা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। মা-বাবাকে অপমান করায় স্কুলের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের জেরে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

আজ বুধবার ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের সিনিয়র শিক্ষক ও গভর্নিং বডির শিক্ষক প্রতিনিধি মুশতারি সুলতানা এ তথ্য জানিয়েছেন।তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‌‘শিক্ষার্থীদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। প্রথম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত সকল শ্রেণির ক্লাস-পরীক্ষা পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত থাকবে।’

ওই শিক্ষার্থীর আত্মহত্যার ঘটনায় স্কুলের অধ্যক্ষের পদত্যাগের দাবিতে বুধবার দ্বিতীয় দিনের মতো বিক্ষোভ করছে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা। সকাল থেকেই অধ্যক্ষের পদত্যাগের দাবিতে স্কুলের মূল ফটকে অবস্থান নিয়ে এ কর্মসূচি পালন করছেন তারা। এর আগে একই দাবিতে মঙ্গলবার থেকেই বিক্ষোভ শুরু করে তারা।

অরিত্রির বিরুদ্ধে স্কুল কর্তৃপক্ষ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নকলের অভিযোগ এনেছিল। এজন্য অরিত্রির মা-বাবাকে ডেকে নেন ভিকারুননিসার অধ্যক্ষ। তাদের ডেকে মেয়ের সামনেই অপমান করে বলেন, সিদ্ধান্ত হয়েছে অরিত্রিকে নকলের অভিযোগে প্রতিষ্ঠান থেকে বের করে দেওয়া হবে। এ অপমান সইতে না পেরে বাসায় এসে অরিত্রি আত্মহত্যা করে।

পুলিশ ও পরিবারের তথ্য অনুযায়ী, সোমবার বেলা সাড়ে ১২টায় রাজধানীর শান্তিনগরে সাততলা ভবনের সপ্তম তলায় নিজ ফ্ল্যাটের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় অরিত্রিকে পাওয়া যায়। এর পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হলে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় গতকাল রাত ৮টার পর রাজধানীর পল্টন থানায় মামলা করেছেন অরিত্রির বাবা দিলীপ অধিকারী। মামলায় কলেজের অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, শাখাপ্রধান জিনাত আরা ও শ্রেণিশিক্ষক হাসনা হেনাকে আসামি করা হয়েছে।  

অরিত্রির আত্মহত্যার ঘটনায় বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ মঙ্গলবার হাইকোর্টের পৃথক দুটি বেঞ্চের নজরে আনেন আইনজীবীরা। এ ছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকেও ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে