সাঁথিয়ায় এক শিক্ষকেই চলছে স্কুল

  সাঁথিয়া প্রতিনিধি

০৮ জানুয়ারি ২০১৭, ১২:২৭ | অনলাইন সংস্করণ

পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার ২০ নং এস-দেবীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রায় ৩০০ শিক্ষার্থীর পাঠদান করেন মাত্র একজন শিক্ষক। বছর শুরুতে ভর্তি, বই বিতরণ, অফিসিয়াল কাজ করছেন একাই। এতে চরম ব্যাহত হচ্ছে পাঠদান। ভেঙ্গে পড়ছে ডিজিটাল দেশ গড়ার প্রাথমিক কাঠামো।

জানা গেছে, উপজেলার ভুলবাড়িয়া ইউনিয়নের স্বরগ্রাম ও দেবীপুর গ্রাম মিলিত হয়ে ১৯৫৩ সালে এস-দেবীপুর নামে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপিত হয়। বিদ্যালয়ে ২টি বিল্ডিং রয়েছে শিক্ষক, শিক্ষার্থীদের জন্য। ভালই চলছিল বিদ্যালয়ের কার্যক্রম।

সরেজমিনে গত শনিবার দুপুরে এস.দেবীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, কোমলমতি শিশুরা মাঠে খেলছে, কেউ নতুন বই পেয়ে পৃষ্ঠা উল্টে দেখছে। অফিস কক্ষে ওই শিক্ষক শিক্ষার্থীদের ভর্তি সংক্রান্ত ছবি ফাইলে সাটাচ্ছেন। পরিচয়ে তিনি ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোছাঃ আসমা খাতুন।

অন্য শিক্ষক প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, একজন পিটিআই টেনিং করছেন, একজন ডেপুটেশনে, অন্যজন মাতৃত্বকালীন ছুটিতে আছেন। বছর শুরুতে ৫ শ্রেণির প্রায় ৩০০ শিক্ষার্থীর শ্রেণি ভর্তি, হাজিরা খাতায় নাম লেখা, স্কুল এরিয়া মানচিত্র তৈরি, ক্লাস রুটিন, বার্ষিক কর্মপরিকল্পনা, বিদ্যালয় এলাকায় শিশু জরিপসহ অফিসিয়াল সকল কাজ করতে হয় তাকে।

তিনি আরও জানান, শিক্ষা অফিসে বার বার শিক্ষকের চাহিদা দিয়ে কোন কাজ হয়নি। পাঠদানসহ সকল কাজ একাই তাকে করতে হচ্ছে।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আশরাফুল ইসলাম বকুল বলেন, শিক্ষক সংকটের বিষয়ে বার বার শিক্ষা অফিসে বললেও কোন কাজ হচ্ছেনা। এ কারণে স্কুলে পাঠদানে চরমভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে। শিক্ষক না থাকায় স্থানীয়রা ছেলে-মেয়ে স্কুলে পাঠাতেও অনিহা প্রকাশ করছে। আমরা শিক্ষায় চরম অবহেলায় আছি।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের পরিদর্শক সহকারী শিক্ষা অফিসার নাদিরা আক্তারের মোবাইলে বারবার ফোন দিলে তিনি ধরেন না।

সাঁথিয়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আমির হোসেন আমাদের সময়কে বলেন, তিনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে