জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগের সুনির্দিষ্ট ঘোষণা দিতে ড. কামালের কাছে আবেদন

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:১৮ | আপডেট : ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:১৮ | অনলাইন সংস্করণ

মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতকারীদের সঙ্গ ত্যাগ করতে ড. কামাল হোসেনের প্রতি আবেদন জানিয়েছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত তরুণ প্রজন্ম। একই সঙ্গে জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগের সুনির্দিষ্ট ঘোষণা ও জামায়াতের পৃষ্ঠপোষকতাকারীদের সঙ্গ ত্যাগ করতে তার প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

আজ রোববার বিকেলে চারটায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অস্থায়ী কার্যালয় পুরানা পল্টনের জামান টাওয়ারে গিয়ে ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক কামাল হোসেনের কাছে স্মারকলিপির মাধ্যমে এ আবেদন জানায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত তরুণ প্রজন্ম।

এই তিনটি বিষয়সহ ড. কামালের কাছে দেওয়া স্মারকলিপিতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত তরুণ প্রজন্ম উল্লেখ করেছে, ‘আপনিসহ কয়েকজন জাতীয় নেতা যাদেরকে তরুণ প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধারক ও বাহক মনে করে, তারা মিলে ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট’ জোটের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। একজন সংবিধান প্রণেতা হিসেবে আপনি বর্তমানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের নামে প্রকারান্তরে মহান মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী জামায়াতের সঙ্গে রাজনৈতিক জোট গঠন করেছেন, যা আপনার প্রণীত সংবিধানের চার মুলনীতির মধ্যে বাঙালি জাতীয়তাবাদ ও ধর্মনিরপেক্ষতার সঙ্গে সরাসরি সাংঘর্ষিক।’

মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের ব্যক্তি হিসেবে কামাল হোসেনকে জামায়াতের সঙ্গ ছেড়ে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করার আবেদন জানায় তারা।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত তরুণ প্রজন্মের প্রতিনিধিদলের সমন্বয়ক মাজহারুল কবির শয়ন জানান, আজ তারা প্রায় ১৫০ জন তরুণ স্মারকলিপি দেওয়ার জন্য কামাল হোসেনের কাছে যান। তারা সবাই বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

শয়ন বলেন, ‘প্রতিনিধিদলের হয়ে আমি কামাল হোসেনের হাতেই স্মারকলিপি দিয়েছি। তাকে বলেছি, ঐক্যফ্রন্টে যারা মুক্তিযোদ্ধা আছেন তারা এবং জামায়াত একসঙ্গে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করছে। এটা আমাদের জন্য অত্যন্ত বেদনাদায়ক। তিনি আমাদের বিষয়টি নিয়ে তাদের মিটিংয়ে আলোচনা করবেন বলে জানিয়েছেন।’

ঐক্যফ্রন্টের আরেক নেতা আ স ম আবদুর রবের সঙ্গে এই প্রতিনিধিদলটির কথা হয় বলে জানান মাজহারুল। তিনি বলেন, ‘এ বিষয় নিয়ে প্রথম থেকেই সবাই নিজ নিজ অবস্থান থেকে কথা বলেছে। সংগঠিত হয়ে কামাল হোসেন পর্যন্ত যেতে আমাদের সময় লেগেছে। আমরা আশা করি কামাল হোসেন এ বিষয়টি নিয়ে ভাববেন।’

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে