নৌকা নিয়েও আ.লীগকে কাছে টানতে পারেননি জাসদ নেত্রী শিরীন

  মুহাম্মদ আরিফুর রহমান, ফেনী

১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ০১:০৬ | অনলাইন সংস্করণ

ফেনী-১ (ফুলগাজী, পরশুরাম ও ছাগলনাইয়া) আসনে মহাজোটের প্রার্থী হয়ে নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন জাসদের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার। এই আসনে জাসদের উল্লেখযোগ্য ভোটার ও জনসমর্থন নেই। আওয়ামী লীগের অঙ্গ-সংগঠনের নেতারা দুই ভাগে নির্বাচন করছেন। ফুলগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল আলীম নির্বাচন করছেন শিরীন আখতারের সঙ্গে। একই উপজেলার সাংগঠনিক সম্পাদক হারুন মজুমদার বিদ্রোহী প্রার্থীর সঙ্গে নির্বাচন করছেন। এই আসনে সরকার দলের অন্য নেতাকর্মীরা এখনো আছেন দোটানায়।

সরেজমিন দেখা গেছে, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন মজুমদার, সদস্য ভিপি নুরুল আমীন, আমজাদ হাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মীর হোসেন মীরু, মুন্সিরহাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি গিয়াস উদ্দিন মিন্টু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মজিবুল হক, ফুলগাজী উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সালেহ আহম্মদ মিন্টু, সাধারণ সম্পাদক একরাম পাটোয়ারিসহ শতাধিক নেতা নৌকার প্রতীকের বাইরে স্বতন্ত্র প্রার্থী শেখ আব্দুল্লাহর সঙ্গে প্রকাশ্যে নির্বাচন করছেন।

ফুলগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হারুন মজুমদার জানান, জাসদের নেত্রী শিরীন আখতার এর আগেও এই আসন থেকে নির্বাচন করেছেন। কিন্তু তিনি আওয়ামী লীগের কোনো কাজে আসেননি। সে জন্য এবার আমরা আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছি। অন্যদিকে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খায়রুল বাশার মজুমদার তপন জানান, অতীতের সব রাগ-ক্ষোভ ভুলে গিয়ে নৌকা মার্কাকে জেতাতে হবে। প্রার্থী দেখে নয়, নৌকা দেখে ভোট দিতে হবে। এ ব্যাপারে শিরীন আখতার জানান, নৌকার কাছে অন্য সব ভেসে যাবে। যারা নৌকার বিরুদ্ধে গিয়ে অন্য প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন, তাদের ব্যাপারে কেন্দ্রে জানানো হয়েছে। তাদের ব্যাপারে আওয়ামী লীগ ব্যবস্থা নেবে।

এই আসন থেকে ইতিপূর্বে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া পাঁচবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। মামলায় সাজার কারণে তিনি এবার নির্বাচনে অংশ নিতে পারছেন না। এখানে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সভাপতি রফিকুল আলম মজনু নির্বাচন করছেন।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে