জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী ঘোষণায় তুরস্কে বিক্ষোভ

  অনলাইন ডেস্ক

০৭ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৮:৩৮ | অনলাইন সংস্করণ

ফিলিস্তিনের জেরুজালেম শহরকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া তুরস্কের রাজধানী আংকারা ও ইস্তাম্বুলে শত শত মানুষ বিক্ষোভ করেছেন। এ সময় তারা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এ ঘোষণার তীব্র নিন্দা ও সমালোচনা করেন। পার্স টুডের খবর।

দুই শহরের বিক্ষোভই শান্তিপূর্ণ ছিল তবে বিক্ষুব্ধ জনতা কোথাও কোথাও কিছু কাগজে আগুন ধরিয়ে প্রতিবাদ করেন এবং ইসরায়েলের পতাকা পোড়ান। বিক্ষোভকারীদের অনেকের হাতে তুরস্কের পতাকা ও নানা রকম ফেস্টুন দেখা যায় যাতে লেখা ছিল ‘ফিলিস্তিন মুক্ত করুন’। বিক্ষোভকারীরা তুরস্কে ইসরায়েলি কনস্যুলেট ভবনের দেয়ালেও ফিলিস্তিন মুক্ত করার দাবিতে নানা স্লোগান লিখেছেন। এছাড়া তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মার্কিন ঘোষণার নিন্দা ও সমালোচনা করে দায়িত্বজ্ঞানহীন এ সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের আহ্বান জানিয়েছে।

বাংলাদেশ সময় গতকাল বুধবার রাত সোয়া ১২টার দিকে জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। জাতিসংঘ, আরব ও মুসলমান-অধ্যুষিত দেশ, এমনকি মার্কিন মিত্রদের আপত্তিকে পাত্তা না দিয়ে তিনি নিজের একগুঁয়েমি সিদ্ধান্তেই অনড় থাকেন। একই সঙ্গে ইসরায়েলের তেলআবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে সরিয়ে নেয়ার কথা জানান ট্রাম্প।

ট্রাম্পের এই ঘোষণার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস দেশটিতে নতুন করে গণঅভ্যুত্থানের ডাক দিয়েছে। ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকা থেকে এ ঘোষণা দিয়ে হামাস নেতা ইসমাইল হানিয়া বলেছেন, ট্রাম্পের এই স্বীকৃতি ইসরায়েল-ফিলিস্তিনের শান্তি প্রক্রিয়াকে ‘হত্যা’ করেছে। এই সিদ্ধান্ত শান্তি প্রক্রিয়াকে হত্যা করেছে, অসলো চুক্তিকে হত্যা করেছে, মীমাংসার প্রক্রিয়াকে হত্যা করেছে।

তিনি আরো বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের এটি একটি আগ্রাসনমূলক সিদ্ধান্ত। ট্রাম্পের এই ঘোষণা ফিলিস্তিনের প্রাণকেন্দ্র ও মুসলিম-খ্রিস্টানদের পবিত্র ভূমি জেরুজালেমে আমাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের ঘোষণা।  ইহুদিবাদী শত্রুদের বিরুদ্ধে গণঅভ্যুত্থান শুরু করার জন্য আমাদের কাজ করা উচিত।

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে