জিতেও হারল বিজেপি

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৬ মে ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৬ মে ২০১৮, ০৭:৪১ | অনলাইন সংস্করণ

গণতন্ত্রের ‘চিপাগলি’ দিয়ে বের হয়ে গেল কংগ্রেস। ভারতের কর্নাটক রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি আসন ব্যবধানে জয় পেয়েও ক্ষমতায় আসতে ব্যর্থ হলো বিজেপি। বিপদকালে জোট বেঁধে সরকার গঠন করতে ‘শত্রুভাবাপন্ন’ দল জেডিএসের ‘সব শর্ত বিনাবাক্যব্যয়ে’ মেনে নিতে রাজি হয়েছে ক্ষমতাসীন রাহুল গান্ধীর দল। মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন জেডিএস নেতা হারাদনহলি দেবগৌড়া কুমারস্বামী। গতকাল মঙ্গলবার এসব খবর দেয় এনডিটিভি।

কংগ্রেসশাসিত কর্নাটকে ভোটগ্রহণ হয় শনিবার। এতে ৭০ শতাংশ ভোট পড়ে। এ নির্বাচনকে কংগ্রেসের সভাপ্রধান রাহুল গান্ধীর পরীক্ষা হিসেবে দেখা হচ্ছিল। সে পরীক্ষায় বস্তুত হেরে গেছেন তিনি।

কর্নাটকের মোট আসন ২২৪টি। কিন্তু দুটি আসনে নির্বাচন স্থগিত রয়েছে। ২২২ আসনে সরকার গঠনে দরকার ১১২ আসন। ভারতীয় জনতা পার্টি বা বিজেপি পায় ১০৪টি আসন, একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা থেকে মাত্র ৮টি আসন কম। কংগ্রেস পায় ৭৮ আসন। জনতা দল সেক্যুলার বা জেডিএস পেয়েছে ৩৮ আসন। অন্যান্য দুটি। কংগ্রেসের ভরাডুবির মধ্যে অন্যতম মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়া সংসদ সদস্য নির্বাচিত হতে পারেননি। কিন্তু কোনোভাবেই বিজেপিকে রাজ্য ক্ষমতায় দেখতে চায়নি কংগ্রেস। দ্রুততার সঙ্গে জেডিএস নেতা, সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেব গৌড়ার সঙ্গে যোগাযোগ করে দলটি। তার ছেলে কুমারস্বামীকে মুখ্যমন্ত্রী করতেও রাজি হয় কংগ্রেস। উপমুখ্যমন্ত্রী হিসেবে অবশ্য কংগ্রেস একজন দলিত নেতার নাম প্রস্তাব করতে পারবে। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তার নাম জানানো হয়নি।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়, দেব গৌড়া ও কুমারস্বামী কংগ্রেসের কথায় রাজি হয়েছেন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত, রাজ্যপালের কাছে দুই জোটই দেখা করতে গেছে।

ভারতে ২৯টি রাজ্য রয়েছে। এদের মধ্যে ২১টিতেই ক্ষমতায় রয়েছে বিজেপি, যে দলটি কেন্দ্রীয় ক্ষমতায় রয়েছে। কর্নাটক ছাড়া আরও দুটি রাজ্যে কাছাকাছি সময়ে নির্বাচন রয়েছে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে