‘সমকামিতা দূর করতে চিকিৎসার প্রয়োজন’

  অনলাইন ডেস্ক

১১ জুলাই ২০১৮, ১১:৫৪ | আপডেট : ১১ জুলাই ২০১৮, ১২:২৪ | অনলাইন সংস্করণ

সমকামিতা হিন্দুত্ববিরোধী এবং এই সমস্যা দূর করতে চিকিৎসার প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের বিজেপি সাংসদ সুব্রমানিয়াম স্বামী। গতকাল মঙ্গলবার তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন।

সাংসদ সুব্রমানিয়াম স্বামী জানান, সমকামিতা কোনো স্বাভাবিক বিষয় নয়। একে সেলিব্রেট করা উচিত নয়। এর চিকিৎসা প্রয়োজন আর তার জন্য মেডিক্যাল রিসার্চে আরও বিনিয়োগ করা প্রয়োজন।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সংবিধানের ৩৭৭ ধারা অনুযায়ী সমকামিতাকে অপরাধ বলে গণ্য করা হয়েছে। ব্রিটিশ আমলে তৈরি এই ধারা বাতিলের দাবি তুলে শুরু এলজিবিটি সম্প্রদায়ের আন্দোলন।

২০০৯ সালে সমকামিতাকে দিল্লি আদালত অপরাধ বলে ঘোষণা করে। তারপরও থেমে যায়নি এলজিবিটি আন্দোলন। সেই রায় পুর্নবিবেচনার দাবিতে সুপ্রিম কোর্টে জমা পড়ে পিটিশন। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট দিল্লি হাইকোর্টের রায়কেই বহাল রাখে। অর্থাৎ ৩৭৭ ধারা বলে কোনো ব্যক্তির দশ বছর থেকে সারাজীবন কারাদণ্ড ও জরিমানা পর্যন্ত হতে পারে।

গতবছর গোপনীয়তাকে মৌলিক অধিকারের স্বীকৃতি ঘোষণার পর সমকামিতা আন্দোলন নতুন মাত্রা পায়। শুরু হয় নতুন করে পিটিশন জমা দেওয়া। যার পরিপ্রেক্ষিতে প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের বিচারপতিকে নিয়ে সাংবিধানিক গঠন করা হয়।

সমকামিতা নিয়ে সংবিধানের ৩৭৭ ধারা পুনর্বহাল থাকবে কিনা তা নিয়ে ফের শুনানি করা হবে সুপ্রিম কোর্টে। এই মামলার শুনানি স্থগিত রাখতে চেয়ে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু গত সোমবার সেই দাবি খারিজ করে দেয় শীর্ষ আদালত। যার ফলে মঙ্গলবার এই মামলার শুনানিতে আর কোনো বাধা রইলো না দেশটিতে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে