সন্তানদের দেখতে গিয়ে হলেন ‘শিশুচোর’, খেলেন গণপিটুনি

  অনলাইন ডেস্ক

১৯ জুলাই ২০১৮, ১১:০৮ | আপডেট : ১৯ জুলাই ২০১৮, ১১:২৮ | অনলাইন সংস্করণ

প্রতীকী ছবি

স্ত্রীর সঙ্গে গত তিনমাস ধরেই বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা চলছে। নয় বছর ও চার বছরের দুটি সন্তান থাকে স্ত্রীর কাছেই। স্ত্রীর সঙ্গে বিবাদ থাকলেও, সন্তানদের এক পলক দেখতে চেয়েছিলেন মহেশ বাবু। কিন্তু সন্তানদের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েই গণপিটুনি খেতে হলো তাকে। ঘটনাটি ভারতের কর্ণাটকের রাজধানী বেঙ্গালুরুর মাণ্ডি জেলার।

ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, গতকাল বুধবার অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে তিন বন্ধুর সঙ্গে কর্ণাটকে আসেন মহেশ বাবু। সন্তানদের এক পলক দেখতেই এত দূর ছুটে আসা তার। রাস্তার মধ্যে হঠাৎ একটি স্কুল বাস থামাতে যান মহেশ। ওই বাসে করেই তার দুই সন্তান বাড়ি ফিরছিল। মহেশ বাবুর জোরাজুরিতে বাস দাঁড়িয়ে পড়ে। ওই বাসেই উঠে পড়েন তিনি। প্রায় নব্বই দিন ধরে কাছে নেই সন্তান। তাই দুই সন্তানকে জড়িয়ে ধরেন তিনি।

কিন্তু এতেই গ্রামবাসীদের মনে সন্দেহ জাগে। শুধু ভালবাসার টানে মহেশ বাবু এমন কাজ করেছেন, তা মানতে নারাজ গ্রামবাসীরা। শিশুচোর বলে সন্দেহ করে মহেশ বাবুকে ঘিরে ধরেন গ্রামবাসীরা। শুরু হয় বেদম মারধর। হাজার আকুতি-মিনতিও কাজে দেয়নি তার। বরং মারধর আরও বাড়তে থাকে। প্রায় আধঘণ্টা ধরে রাস্তার মাঝে শুয়েই মার খান মহেশ বাবু।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় পুলিশ। তারা মহেশকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। ওই দুটি শিশুকেও থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। খবর দেওয়া হয় শিশুদের মা আশাকে। মহেশের দাবি যে সম্পূর্ণ সত্যি তা জানান তিনি। এরপর শিশু দুটিকে তাদের মা-র হাতে তুলে দেওয়া হয়। পরে স্থানীয় হাসপাতালে পাঠানো হয় মহেশকে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে