ধরলেই গলে যায় মাছ (ভিডিও)

  অনলাইন ডেস্ক

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৫:১৪ | অনলাইন সংস্করণ

পৃথিবীর নতুন আবিষ্কৃত প্রাণীর নাম 'আটাকামা স্নেইল ফিশ'। এটি এমন একটি মাছ যাকে হাতে নিলেই গলে যায়। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২৬ হাজার ফুট নীচে এদের বসবাস। নিউ ক্যাসল ইউনিভার্সিটি আয়োজিত ২০১৮ চ্যালেঞ্জার কনফারেন্স নামে একটি সম্মেলনে এই মাছটির কথা বিশ্ববাসীকে জানানো হয়েছে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম 'কোয়ার্টজ' তাদের একটি প্রতিবেদনে জানিয়েছে, সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২৬ হাজার ফুট নীচে বসবাস করা আটাকামা স্নেইল ফিশ দেখতে স্বচ্ছ। এটি খুবই নরম মাছ, যা বেঁচে থাকে নিজের দাঁত আর কানের ভিতরে থাকা হাড়ের মাধ্যমে দেহের ভারসাম্য রক্ষা করে।

নিউ ক্যাসল ইউনিভার্সিটি আয়োজিত ২০১৮ চ্যালেঞ্জার কনফারেন্সে বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক থমাস লিনলে জানিয়েছেন, আটাকামা স্নেইল ফিশ নীল, গোলাপি ও পার্পল রঙের হয়ে থাকে। পৃথিবীর গভীর তলদেশের পানি উপরিভাগের চেয়ে ঠাণ্ডা থাকায় সেখানে মাছগুলো সাধারণভাবে চলাফেরা করতে পারে। তবে সমুদ্রের উপরিভাগের পানি নিম্নভাগের তুলনায় গরম হওয়ায় মাছগুলোকে সমুদ্রপৃষ্ঠে আনা হলে সেখানকার তাপমাত্রায় গলে যায়।

থমাস লিনলে বলেছেন, ‘মাছগুলোর প্রতিবন্ধকতার কারণ এদের শরীর। এরা এত বেশি নরম ও স্বচ্ছ, মানুষের হাতের তাপমাত্রায় এরা গলে যেতে পারে।’

আপাতত বিজ্ঞানীরা একটি আটাকামা স্নেইল মাছকে আলাদা করে সংরক্ষণ করেছেন। তবে মাছটিকে বাঁচানো না গেলেও এর শরীরকে গলে যাওয়া থেকে আপাতত রক্ষা করতে পেরেছেন।

নিউ ক্যাসল ইউনিভার্সিটির ওই কনফারেন্সে আরও জানানো হয়েছে, সারা পৃথিবীতে ৪শ'রও বেশি স্নেইল ফিশের প্রজাতি রয়েছে। কিন্তু এই আটাকামা স্নেইল ফিশ অন্যান্যগুলোর থেকে আলাদা। এদের শরীরের কাঁটার সংখ্যাও কম। এরা স্বল্প সময় বেঁচে থাকতে পারে। মরে যাওয়ার পর যখন এদের শরীর গলে যায়, তখন শরীরের অংশগুলো দেখা যায় না।

শুধু তাই নয় একই গোত্রের মেরিয়ানাস স্নেইল ফিশ নামে আরেক ধরনের মাছ আছে যাদের বাস ২৬,৬০০ ফুট নিচে। এদের শরীরের প্রকৃতিও প্রায় একই রকম। তবে গবেষকরা এই মাছটির ব্যাপারে তেমন কোনো তথ্য দেননি।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে