বিশ্ব মিডিয়ায় ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় রায়

  অনলাইন ডেস্ক

১০ অক্টোবর ২০১৮, ১৭:৪৬ | আপডেট : ১১ অক্টোবর ২০১৮, ০০:৫৪ | অনলাইন সংস্করণ

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে এ মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ১৯ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। আদালতের এই রায় বিশ্বের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম গুরুত্ব দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছে।

আল জাজিরা : কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা রায়ের পরই সংবাদ প্রকাশ করেছে। আল জাজিরার শিরোনামে বলা হয়েছে, ‘২০০৪ সালে হামলার অভিযোগে বাংলাদেশ ১৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে।’

এ ছাড়া তারেক রহমানের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের বিষয়টিকেও গুরুত্ব দিয়েছে সংবাদমাধ্যমটি। আল জাজিরায় বলা হয়েছে, ‘ঢাকার আদালত বিরোধীদলীয় প্রধান নেতা তারেক রহমানকে ২০০৪ সালের সমাবেশে হামলার কারণে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে।’

রয়টার্স : যুক্তরাজ্যভিত্তিক বার্তাসংস্থা রয়টার্স তারেক রহমানের যাবজ্জীবনের বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছে। রয়টার্সের শিরোনামে বলা হয়েছে, ২০০৪ সালের বিস্ফোরণের মামলায় বাংলাদেশের বিরোধী দলের ভারপ্রাপ্ত প্রধানকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে বাংলাদেশের আদালত।

বিবিসি : যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম বিবিসিও গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ করেছে রায়ের সংবাদটি। তাদের শিরোনামে বলা হয়েছে ২০০৪ সালে হামলার মামলায় বাংলাদেশ ১৯ জনের ফাঁসি দিয়েছে। বিবিসির প্রকাশিত সংবাদে তারেক রহমানের সাজার বিষয়টির ওপরই মূলত গুরুত্ব দিয়েছে।

চ্যানেল নিউজ এশিয়া : সিঙ্গাপুরভিত্তিক টিভি চ্যানেল নিউজ এশিয়া প্রকাশ করেছে মামলার রায়টি। ‘২০০৪ সালে হামলার মামলায় ১৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে বাংলাদেশ’— এমন শিরোনামে তারা সংবাদ প্রকাশ করে।

এবিসি নিউজ : যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম এবিসি নিউজের শিরোনামে বলা হয়েছে, ২০০৪ সালে একটি সমাবেশে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপর হামলার অভিযোগে বাংলাদেশি ট্রাইব্যুনাল ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে। এবিসির সংবাদে মৃত্যুদণ্ডের কথাই উল্লেখ আছে। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের যাবজ্জীবনের বিষয়টি তারা সামনে নিয়ে আসেনি।

সিনহুয়া : চীনের রাষ্ট্রী বার্তা সংস্থা সিনহুয়ায় উঠে এসেছে মামলায় রায়। সিনহুয়া বলেছে, ২০০৪ সালে গ্রেনেড বিস্ফোরণের মামলায় ১৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড এবং ১৯ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে। ভেতরে তারেক রহমানের নাম উল্লেখ না থাকলেও দুজন মন্ত্রীর মৃত্যুদণ্ডের বিষয়টি উঠে এসেছে।

এনডিটিভি : ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভিও গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ করেছে সংবাদটি। তবে তারা তারেক রহমানের বিষয়টি সামনে নিয়ে এসেছে। তারা বলেছে, ‘বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার ছেলেকে ২০০৪ সালে গ্রেনেড হামলার কারণে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে।’  

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে