বৈঠক থেকে বেরিয়ে গেলেন ট্রাম্প

  অনলাইন ডেস্ক

১০ জানুয়ারি ২০১৯, ০৯:৫১ | আপডেট : ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ১৩:৪৮ | অনলাইন সংস্করণ

ফাইল ছবি

যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকোর সীমান্তে দেয়াল নিয়ে জটলা যেন দিন দিন বাড়ছেই।  এর জেরে কেন্দ্রীয় সরকারের কার্যক্রম ১৯ দিন ধরে বন্ধ রয়েছে।  গতকাল বুধবার এ প্রসঙ্গে ডেমোক্র্যাটদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত এক বৈঠক থেকে বেরিয়ে যান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

বিবিসি বলছে, হাউজ স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি ও সিনেট সংখ্যালঘু দলের নেতা চাক শুমার সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের জন্য অর্থ না বাড়ানোর ব্যাপারে আগের অবস্থানে অটল থাকলে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আলোচনা থেকে বের হয়ে যান। ট্রাম্প এই বৈঠককে তার ভাষায় ‘সময়ের সম্পূর্ণ অপচয়’ বলে আখ্যায়িত করেছেন।  টুইটে ডেমোক্র্যাট দলের বড় নেতাদের উদ্দেশে লেখেন ‘বাই-বাই’।

বৈঠকে হাউজ স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি ট্রাম্পকে বলেন, বিপুল সংখ্যক কেন্দ্রীয় কর্মচারীদের বেতন দিতে না পারাটা একই সঙ্গে আরেকটা ক্ষতি। তিনি বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট মনে হচ্ছে তাদের প্রতি অসংবেদনশীল হচ্ছেন।  তিনি হয়তবা মনে করছেন তারা তাদের বাবার কাছে অর্থ চাচ্ছেন।’

চাক শুমার সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, পেলোসি যখন দেয়াল নির্মাণের বিষয়ে অর্থ বরাদ্দের অনুমোদন দিতে রাজি হননি তখনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আলোচনার মাঝখানে উঠে চলে যান।

চাক শুমার বলেছেন, ‘প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প স্পিকার পেলোসিকে জিজ্ঞেস করেছেন, ‘আপনি কি আমার দেয়াল নির্মাণের ব্যাপারে রাজি আছেন? পেলোসি বলেন, না।’ তখন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প উঠে দাঁড়ালেন এবং বললেন, ‘তাহলে আমাদের আলোচনা করার কিছুই নেই এবং তিনি সেখান থেকে বেরিয়ে গেলেন।’

এ প্রসঙ্গে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স সাংবাদিকদের বলেছেন, তিনি হতাশ কারণ ডেমোক্র্যাটরা ভালো বিশ্বাসে আলোচনা করতে রাজি ছিল না। আরেকজন রিপাবলিকান নেতা কেভিন ম্যককার্থি বলেন, তিনি ডেমোক্র্যাট নেতাদের ব্যবহার অস্বস্তিকর মনে করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণে বাজেট বরাদ্দ ইস্যুতে গত ২২ ডিসেম্বর থেকে ফেডারেল সরকারের একাংশের কাজকর্ম বন্ধ হয়ে গেছে।  এর ফলে আট লাখ ফেডারেল কর্মী কোনো বেতন পাচ্ছেন না।  মেক্সিকো সীমান্তে নিরাপত্তার দেয়াল নির্মাণের জন্য ট্রাম্পের দাবি অনুসারে ৫০০ কোটি মার্কিন ডলার দিতে ডেমোক্র্যাটদের আপত্তি রয়েছে।

ট্রাম্প জানান, তার দাবি মতো অর্থ না দেওয়া পর্যন্ত তিনি কোনো বাজেট প্রস্তাবে স্বাক্ষর করবেন না।  অন্যদিকে ডেমোক্র্যাটরা জানিয়েছেন, ১৩০ কোটি ডলারের চেয়ে এক পয়সাও বেশি দিতে তারা সম্মত হবেন না।

টানা দুই সপ্তাহ বন্ধের ফলে সরকারি কর্মচারী বেকায়দায় পড়েছেন।  শুক্রবারের সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্পকে সে ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, নিয়মিত বেতন পাওয়ার চেয়ে জাতীয় নিরাপত্তার প্রশ্নটি অনেক বেশি জরুরি।  তিনি দাবি করেন, দেশের অধিকাংশ মানুষ তার দাবির প্রতি সহমত পোষণ করে।

সর্বশেষ জনমত জরিপ অনুসারে, দেশের ৪৭ শতাংশ মানুষ ফেডারেল সরকার বন্ধ থাকার জন্য ট্রাম্পকে দায়ী করেছেন।  ডেমোক্র্যাটদের দায়ী করেছেন এমন আমেরিকানের সংখ্যা ৩৩ শতাংশ।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে