যেসব জুস পানে ত্বক হবে উজ্জ্বল

  অনলাইন ডেস্ক

১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৮:০০ | অনলাইন সংস্করণ

ফর্সা এবং উজ্জ্বল ত্বকের অধিকারী হয়ে উঠতে কে না চায়। তাই সবাই নানাভাবে চেষ্টা চালিয়ে যান। কেউ সফল হন, কেউ হন না।  অনেকে ত্বকের পুষ্টির কথা না ভেবে অন্ধের মতো শুধু বিউটি প্রডাক্ট ব্যবহার করে থাকেন। ফলে সুন্দর ত্বক পাওয়ার স্বপ্ন অধরাই থেকে যায়। সেই সঙ্গে ত্বকের মারাত্মক ক্ষতি হয়। কিন্তু কসমেটিক্সের পরিবর্তে যদি ত্বকের পরিচর্যায় জুসকে কাজে লাগানো যায়, তাহলে কিন্তু দারুণ উপকার মেলে।

শরীরের পাশাপাশি ত্বকের পুষ্টি বজায় রাখতে জুসের কোনো বিকল্প হয় না বললেই চলে। তাই ত্বকের সৌন্দর্য্য বাড়াতে যদি চান, তাহলে বিউটি প্রডাক্টের পরিবর্তে আজ থেকেই জুস খাওয়া শুরু করুন। যেসব ফল খেলে উপকার পাওয়া যায় সেগুলি সম্পর্কে জানিয়েছে জীবনধারা বিষয়ক সাময়িকী বোল্ডস্কাই।

১. আপেলের জুস
আপেলের জুস নিয়মিত পানে বলিরেখা কমিয়ে ত্বকের বয়স কমাতে সাহায্য করে। ফলটিতে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং আরও নানাবিধ উপকারি উপাদান, যা ত্বকের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। সেই সঙ্গে শরীরকে চাঙ্গা রাখতেও সাহায্য করে।

২. গাজর এবং কমলা লেবু
গরমকালে স্কিনকে বাঁচাতে অতিবেগুনি রশ্মির হাত থেকে ত্বককে বাঁচানো একান্ত প্রয়োজন। আর এই কাজে আপনাকে সাহায্য করতে পারে গাজর এবং কমলা লেবু।

৩. কমলা লেবুর রস
এই ফলে উপস্থিত সিট্রিক অ্যাসিড শরীরে প্রবেশ করা মাত্র ত্বকের ভেতরে কোলাজেনের উৎপাদন বাড়িয়ে দেয়। ফলে ত্বক ফর্সা হয়ে উঠতে সময় লাগে না। সেই সঙ্গে নানাবিধ ত্বকের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও যায় কমে।

৪. বাঁধাকপির জুস
বাঁধাকপিতে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন এ, সি এবং কে, সেই সঙ্গে রয়েছে ভিটামিন বি৫, বি১, ই এবং ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড। এই সবকটি উপাদানই ত্বকের স্বাস্থ্যের উন্নতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

৫. অ্যালোভেরার রস
ত্বক এবং চুলের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে এই প্রকৃতিক উপাদানটির কোনো বিকল্প নেই বললেই চলে। কারণ অ্যালোভেরা জেলে রয়েছে ফাইবার, ভিটামিন, মিনারেল, অ্যামাইনো অ্যাসিড এবং প্রোটিন। এই সবকটি উপাদানই ত্বকের সৌন্দর্য বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

৬.আনারসের রস
আনারসে রয়েছে ব্রমেলিন নামে একটি উপাদান, যা ব্রণের প্রকোপ কমানোর পাশপাশি বিভিন্ন ত্বকের রোগের প্রকোপ কমাতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। এই উপাদানটি ত্বকের মধ্যে লুকিয়ে থাকা নানা ক্ষতিকর উপাদানকে বের করে দেয়। ফলে কোনো ধরনের ত্বকের রোগই আক্রমণ করার সুযোগ পায় না।

৭. বিটরুটের জুস
নিয়মিত বিটের জুস খেলে ত্বকের বয়স কমতে থাকে। ফলে সৌন্দর্য এমনিতেই বেড়ে যায়। শুধু তাই নয়, ত্বকে উপস্থিত নানা ক্ষতিকর উপাদানকে বের করে দিয়ে স্কিনের স্বাস্থ্যের উন্নতিতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে