ট্রেন্ডি সারা’য় বাহারি পোশাক

  মো. জুবাইর

২৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ২১:০০ | আপডেট : ২৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ২১:১৭ | অনলাইন সংস্করণ

শীত এলেই ট্রেন্ডে লাগে স্টাইলিশ ফ্যাশনের হাওয়া। এই শীতে ফ্যাশনে এসেছে অনেক পরিবর্তন। বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের কাছে স্টাইলিশ পোশাকের কদর অনেক বেড়েছে। বর্তমানে তরুণদের কাছে দেশীয় পোশাক যেমন পছন্দের, একই সঙ্গে তারা পছন্দ করেন স্টাইলিশ পোশাকও।

রাজধানীতে বাড়ছে শীতের মাত্রা। শীতের পরিপূর্ণ উষ্ণতা পেতে এরই মধ্যে শুরু হয়েছে শীতের পোশাক কেনাকাটার ধুম। তরুণদের জন্য কাপড়ের উষ্ণতা, স্টাইল ও আরাম-সবকিছু বিবেচনা করে নিজেদের ট্রেন্ড নিয়ে এসেছে ‘সারা লাইফস্টাইল’।

৭৫ ধরনের জ্যাকেট নিয়ে এসেছে এই লাইফস্টাইল ব্র্যান্ডটি। রয়েছে নানান ধরণের ট্রেন্ডি পোশাকও, যা ফ্যাশনেবল ও ওয়্যারেবল। আধুনিক তারুণ্যের কথা মাথায় রেখেই পোশাক তৈরি করছে প্রতিষ্ঠানটি।

শীতের আয়োজনে প্রাপ্তবয়স্কদের পাশাপাশি শিশুদের জন্যও বিশেষ ডিজাইনের পোশাক নিয়ে এসেছে সারা। শীতের এসব পোশাকের মধ্যে রয়েছে ছেলে ও মেয়েদের বোম্বার জ্যাকেট, কুইল্টেট ভেস্ট, পাফার জ্যাকেট, বিভিন্ন রকম হুডি, ছেলেদের ক্যাজুয়াল ব্লেজার, ফ্ল্যানেল শার্ট ও স্কার্ফ, কিডস পাফার জ্যাকেট এবং কিডস হুডি।

সারার আউটলেটগুলো ঘুরে পোশাকগুলো দেখে মনে হয়েছে, এবারের শীত আয়োজনে এগিয়ে থাকছে প্রতিষ্ঠানটি। এর মধ্যে কথা হলো মিরপুর-৬-এ অবস্থিত (স্টেডিয়ামের ৬ নম্বর গেটের বিপরীতে) সারার আউটলেটে আসা এক ক্রেতার সঙ্গে।

সুমাইয়া শান্তা নামের ওই ক্রেতা পেশায় একজন ফ্যাশন ডিজাইনার। তিনি বলেন, ‘আমি নিজেই নিজের ও বাচ্চাদের পোষাক ডিজাইন করি। কিন্তু সারার ডিজাইনগুলো আমার ডিজাইনের চেয়ে ভালো মনে হয়েছে। আমার ছোট ছেলেটার জন্য একটা হুডি নিয়েছি। ও-ই আমাকে বলল, “মা হুডিটা অনেক সুন্দর।” অথচ, গত তিন বছরে ছেলেটা আমার কোনো পোশাকের তারিফ করেনি।’

ঘুরতে ঘুরতে সুন্ধরা সিটির লেভেল-১ ব্লক-এ ৪০ ও ৫৪ নম্বর পজিশন নিয়ে গড়া সারার আরেকটি আউটলেটে অনেক পণ্যের ভিড়ে গ্রাহকদেরও দেখা গেছে বেশ। এর মধ্যে কথা হয় হাসান ইমাম সজিব নামে এক সাংবাদিকের সঙ্গে। সজিব বলেন, ‘প্রতি শীতেই কোনো না কোনো ব্র্যান্ড থেকে ব্লেজার বা জ্যাকেট কিনেছি। কিন্তু এবার অন্য কোথাও যাইনি। সারা থেকেই তিন ডিজাইনের জ্যাকেট নিয়েছে। প্রত্যেকটিই আমার সময়ের সঙ্গে মিলিয়ে কেনা।’

গত রোজার ঈদের পরিবারের জন্যও সারা থেকে কয়েকটি পোশাক কিনেছেন সজিব। জানালেন, ‘প্রতিবারই আমি আমার মা-বাবা আর বোনকে পোশাক উপহার দেই। এবার রোজায় সারা থেকেই কিনেছি। বোনের জন্য একটি ওয়ান পিস কামিজ কিনেছি। পোশাকটা ট্রেন্ডি। আর বাবা-মার জন্য তাদের পছন্দনীয় পোশাক কেনা হয়েছে।

বর্তমান ফ্যাশনের কথা চিন্তা করে এবার সারাই সবচেয়ে বেশি পোশাক নিয়ে এসেছে বাজারে। এর মধ্যে আছে, শার্ট, এথনিক টপস, বিশেষ পার্টি টপস, নিট টি শার্ট, লেগিংস, ডেনিম, লোন, শ্রাগস, পালাজো ফর লেডিস এন্ড গার্লস, ছেলে মেয়েদের জিনসের পোশাক, পোলো টি শার্ট ও পাঞ্জাবি। আর সবগুলো পোশাকই ডিজাইন করেন সারা লাইফস্টাইলের ফ্যাশন ক্রিয়েটররা।

প্রতিষ্ঠানটির হেড অব ডিজাইন কাশফিয়া নেহরীন আমাদের সময়কে বলেন, ‘আমরা সবার আগে ক্রেতাদের মন বুঝতে চেষ্টা করি। প্রথম থেকেই আমরা মার্কেট যাচাই করেছি। দেখেছি তরুণদের কী পছন্দ। বয়স্ক বা মধ্য বয়সীদের কী পছন্দ। এমনকি শিশুদের পোশাকের ব্যাপারে আমরা অনেক যাচাই বাছাই করে থাকি।’

কাশফিয়া বলেন, ‘শীতকে প্রাধান্য দিয়ে আমরা দুই ধরণের পোশাক এনেছি। হালকা বা বেশি দুই ধরণের শীতের জন্য আমাদের রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন পোশাক। সারার এসব পোশাকের ফেব্রিকে আমরা ব্যবহার করেছি ডেনিম, ফেক লেদার এবং সিনথেটিক কাপড়ের পোশাক। এ ছাড়া রয়েছে জ্যাকেট, ভেস্ট ও ব্লেজার।’

শীতের বাইকারদের জন্যও আলাদা ধরনের পোশাক এনেছে সারা। কাশফিয়া বলেন, ‘পোশাকের সাথে সাথে বাইকও এখন একটা ট্রেন্ড। তাই এবার বাইকারদের জন্য আমরা এনেছি বাইকার জ্যাকেট, পাফার জ্যাকেট, হুডি। হালকা শীতের জন্য আছে ফ্লানেল, স্কার্ফ ও ডেনিম টপস।’

সারার পোশাকগুলো ট্রেন্ডি এবং সুবিধাজনক হওয়ার কারণে এর চাহিদা বাড়ছে ফ্যাশন সচেতনদের মধ্যে। আপাতত বসুন্ধরা ও মিরপুরে নিজস্ব আউটলেটে নিজেদের কার্যক্রম পরিচালনা করছে এই ফ্যাশন হাউজটি। আগামীতে দেশের বিভিন্ন স্থানে নিজেদের আউটলেট পরিসর বড় করার কথা ভাবছে প্রতিষ্ঠানটি।

প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, প্রতিটি মৌসুমে তারা ভিন্ন ভিন্ন ডিজাইনের পোশাক নিয়ে আসবে। ষড়ঋতুর এই দেশে প্রতিটি উৎসব ভেদেই তারা নিয়ে আসবে বাহারি রঙয়ের বাহারী ডিজাইনের পোশাক। সারার পরিপাটি অনুষঙ্গে আপনিও হয়ে উঠতে পারেন সুন্দর। আরও সময়োপযোগী সাজ বেছে নিতে সারাই হতে পারে আপনার নতুন সঙ্গী।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে