ঝুঁকিমুক্ত কোরবানির জন্য সুস্থ পশু কেনার টিপস

  আয়েশা সিদ্দিকা

০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬, ১১:১৬ | আপডেট : ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬, ১১:৩৭ | অনলাইন সংস্করণ

আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর পবিত্র ঈদ-উল-আযহা বা কোরবানির ঈদ। একদিকে যেমন সবার প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদ উদযাপনের জন্য ঘরে ফেরার তাড়া বাড়ছে, আরেক দিকে জমে উঠেছে কোরবানির পশুর বাজার। ইতোমধ্যেই হাটগুলোতে কোরবানির জন্য পশু আসা শুরু হয়েছে। আর ক্রেতারাও হাটে হাটে ঘুরে তাদের পছন্দমত পশুটি কিনতে চেষ্টা করছেন। ক্রেতা-বিক্রেতার হাঁক-ডাকে তাই ঈদের আনন্দ যেন ঈদের কয়েক দিন আগেই শুরু হয়ে যায়।

যেহেতু কোরবানি দেওয়া ধর্মীয় দিক থেকে খুব গুরত্বপূর্ণ বিষয়। তাই ঈদের কয়েকদিন আগেই একটু দেখে-শুনে কোরবানির জন্য সুস্থ পশু কেনা ভালো। এতে আপনার কোরবানি ঝুঁকিমুক্ত হওয়ার পাশাপাশি ঈদ হয়ে উঠবে আরও আনন্দময়।

কোরবানির জন্য সুস্থ পশু কিনতে জেনে নিন প্রয়োজনীয় কিছু টিপস-

# কোরবানির গরু কেনার সময় অভিজ্ঞ কাউকে সঙ্গে নিয়ে যাবেন, যিনি সুস্থ গরু দেখে চিনতে পারেন। এক্ষেত্রে গরুর ক্ষেত্রে- বয়স কমপক্ষে দুই বছর বয়স হতে হবে। সাধারণত এটা আমরা দাঁত দেখে বুঝতে পারি। দেখতে অক্ষত এবং সুন্দর হতে হবে।
ছাগলের ক্ষেত্রে- বয়স কমপক্ষে এক বছর বয়স হতে হবে।
উটের ক্ষেত্রে- বয়স কমপক্ষে পাঁচ বছর হতে হবে।
ভেড়ার ক্ষেত্রে- বয়স কমপক্ষে এক বছর হতে হবে, তবে ছয় মাস বয়সের দুম্বা/ভেড়াকে দেখে যদি এক বছর বয়সের মত দেখায় তাহলে তাকে কুরবাণী করা যাবে।

#  দিনের আলো থাকতেই সুস্থ পশু কিনুন। তা না হলে রাতের বেলা কিনলে রোগাক্রান্ত পশু কেনার সম্ভবনাই বেশি থাকে।

# পশুর মুখের সামনে কিছু খাবার ধরুন। পশুটি যদি নিজ থেকে জিব দিয়ে খাবার টেনে নিয়ে খেতে থাকে, তবে বোঝা যাবে পশুটি সুস্থ। কারণ অসুস্থ পশু খাবার খেতে চায় না।

# সুস্থ পশুর নাকের উপরটা ভেজা ভেজা থাকে।

# গর্ভবতী গরু কোরবানি দেওয়া যায় না। তাই বেনার আগে সেটা নিশ্চিত হয়ে নিন।

# সুস্থ পশুর পিঠের কুঁজ মোটা ও টান টান হয়।

# গরু কিনতে চাইলে দেশি কিনতে চেষ্টা করুন। কারণ সীমান্ত পার হয়ে আসা গরুগুলো অনেক দূর থেকে আসে বলে ক্লান্ত হয়। অনেক সময় সেগুলো ছোট-খাট আঘাতপ্রাপ্তও হয়। আর দুর্বল গরু সুস্থ নাকি অসুস্থ সেটা বোঝা বেশ কষ্টকর।

# মোটা গরু মানেই কিন্তু সুস্থ গরু নয়। মোটা গরুতে চর্বি অনেক বেশি হয়, যা খাওয়ার পর মানুষের স্বাস্থ্যের ঝুঁকি অনেক বেড়ে যায়। আর এ ধরনের অস্বাভাবিক মোটা গরু কিন্তু বিভিন্ন ওষুধ প্রয়োগ করেও মোটাতাজা করা হতে পারে। তাই সাবধান থাকুন।

# পশু কেনার আগে এর শরীরের কোথাও ক্ষত আছে কিনা পরীক্ষা করে নিন।

# শিং ভাঙ্গা আছে কিনা, লেজ, মুখ, দাঁত, খুর এসব কিছুই পরীক্ষা করে দেখুন, কোন ত্রুটি চোখে পড়ে কিনা। এসব কিছুই লক্ষ্য করলে দেখবেন অতি সহজেই সুস্থ পশু কেনা আপনার জন্য অনেক সহজ হবে।

সতর্কতা

# কোরবানির পশু হাট থেকে বাড়িতে আনার জন্য একজন শক্ত-সামর্থ্য লোক সঙ্গে নিন।

# হাটে যাওয়ার সময় টাকা সাবধানে রাখুন।

# পশু কিনতে যাওয়ার সময় ভালো পোশাক না পরাই উত্তম। তাতে দাগ বা ময়লা লাগার আশঙ্কা থাকে।

# খাজনার হাত থেকে রেহাই পেতে হাটের বাইরে থেকে পশু কিনবেন না। এতে লাভবান হওয়ার চেয়ে চোরাই পশু কেনার আশঙ্কা থাকে।

# হাটের খাজনা ঠিকমতো পরিশোধ করুন।

# পশু কিনেই হাট থেকে পশুর খড় কিনে ফেলুন। এতে বাসায় এস আর ঝামেলা পোহাতে হবে না।

# হাট থেকে পশু আনার সময় পাটের দড়ি দিয়ে পশুকে ভালোভাবে বেঁধে আনুন।

# কোরবানির আগেই কসাই ঠিক করে রাখুন।

# মাংস কেটে রাখার জন্য পরিষ্কার চাটাই সংগ্রহে রাখুন। সূত্র: ওয়েবসাইট।

 

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে