আর নয় কানাকানি

  আয়েশা সিদ্দিকা

০৩ জানুয়ারি ২০১৭, ১১:১৫ | আপডেট : ০৩ জানুয়ারি ২০১৭, ১১:১৯ | অনলাইন সংস্করণ

একসঙ্গে দুটো মানুষ যখন হাতে হাত রেখে নতুন করে পথ চলার শপথ নেয় তখন সে পথে বাঁধা-বিপত্তি আসেই। তাই বলে তো আর জীবন থেমে থাকে না। সব বাঁধা জয় করেই তারা সামনের দিকে এগিয়ে যান। বিবাহিত জীবনে সুসম্পর্ক বজায় রাখতে নিজের প্রিয় মানুষটির সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্ক রাখা ভাল। তবে অনেকেই আছেন যারা বৈবাহিক জীবনের নানা কথা বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করেন কিংবা সেগুলো ফলাও করে প্রচার করেন। এ কাজটি কিন্তু একেবারেই ঠিক নয়। একটু খেয়াল করলেই দেখবেন, সম্পর্কের আনন্দময় মুহূর্তগুলো যখন অন্যের সঙ্গে শেয়ার করেন তখন সে আপনাকে মনে মনে হিংসা করতে শুরু করে। এখানেই শেষ নয়, আপনার সম্পর্কের খারাপ দিকগুলো সমালোচকদের কাছে হাসি কিংবা গল্পের বিষয়বস্তুও হতে পারে। কাজেই সম্পর্কের টানা-পোড়েনের কথা বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার না করাই ভাল।

সম্পর্কের টানা-পোড়েন বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করবেন না যে কারণে-

কারণ-১
বিছানায় আপনার সঙ্গী আপনাকে কতটুকু ভালোবাসে তা কখনই বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করবেন না। এ বিষয়টা কোন কারণে যদি আপনার সঙ্গী জানতে পারে তাহলে সে বিব্রত বোধ কিংবা লজ্জিত হতে পারে। কাজেই এমন বিষয় এড়িয়ে চলাই ভালো।

কারণ-২
অনেক সময় সঙ্গীর সঙ্গে ঝগড়া হলেই আমরা বন্ধুদের সঙ্গে বিষয়টি শেয়ার করি। এটাও ঠিক নয়। কারণ যার সঙ্গে আপনি শেয়ার করলেন সে যদি পক্ষপাতদুষ্ট এবং সমালোচক হয়, তাহলে সে আপনার সম্পর্ক নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখবে। এর প্রভাব পরবর্তীতে সম্পর্কের ওপর পড়তে পারে।   

কারণ-৩
আপনার সঙ্গী অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল হলে বিষয়টি নিয়ে কেবল তার সঙ্গেই কথা বলুন। যতটা সম্ভব তাকে সাহায্য করুন। অর্থনৈতিক বিষয় শেয়ার করে আপনার সঙ্গীকে অন্যের কাছে হাসির পাত্র করে তুলবেন না। যা পরবর্তীতে সম্পর্ক নষ্টের কারণ হতে পারে।

কারণ-৪
সম্পর্কের খারাপ দিকটা আপনি চাইলেই বাবা-মাকে বলতে পারেন। তবে অবশ্যই বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করবেন না। কেননা তারা আপনার কথা শুনে সম্পর্কে ব্রেকআপের পরামর্শ দিতে পারেন।

কারণ-৫
অতীতে সঙ্গীর ডিভোর্স হয়ে থাকলে কিংবা একাধিক সম্পর্ক ভাঙার রেকর্ডও বন্ধুদের বলবেন না। এতে করে আপনাকে তারা নানা ধরণের কুপরামর্শ দিতে পারে। এর কারণে সম্পর্ক নাও টিকতে পারে।

কারণ-৬
সঙ্গীর বিরুদ্ধে আপনার যদি কোন অভিযোগ থাকে, তাহলে সে বিষয়গুলো নিয়ে তার সঙ্গেই কথা বলুন। এসব বিষয় বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করলে তারা স্বাভাবিকভাবেই আপনাকে সম্পর্ক থেকে বের হয়ে আসতে বলবে। তারা সবসময় আপনাকে এটাই বোঝাবে, অন্য কারও সঙ্গেই তুমি বেশি ভালো থাকবে। যা পরবর্তীতে নাও হতে পারে। কাজেই সুসম্পর্ক বজায় রাখতে বন্ধুদের সঙ্গে বিবাহিত জীবন নিয়ে কানাকানি করার স্বভাব একেবারেই ত্যাগ করুন।

তথ্যসূত্র: বোল্ডস্কাই ডট কম।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে