‘ডিসটিংগুইশড প্রফেসর’ হলেন ড. আলী রীয়াজ

  নিউইয়র্ক থেকে

১৫ জানুয়ারি ২০১৮, ১০:৩৯ | অনলাইন সংস্করণ

অধ্যাপক ড. আলী রীয়াজ
দক্ষিণ এশিয়া তথা আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে অসাধারণ মেধার প্রতিফলন ঘটিয়ে ‘ডিসটিংগুইশড প্রফেসর’ হলেন বাংলাদেশী-আমেরিকান অধ্যাপক ড. আলী রীয়াজ। যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির রাজনীতি ও সরকার বিভাগের অধ্যাপক আলী রীয়াজকে একই ইউনিভার্সিটির ‘ডিসটিংগুইশড প্রফেসর’ হিসেবে ঘোষণা দেয় ১১ জানুয়ারি।

একই সঙ্গে ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ জিওলজির অধ্যাপক ডেভিড মেলোনকেও ‘ডিসটিংগুইশড প্রফেসর’ হিসেবে ঘোষণা দেয়। আসছে ১৫ ফেব্রুয়ারি ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির ‘এ্যানুয়াল ফাউন্ডার্স ডে কনভেনশন-এ উভয়কে এই সম্মাননা প্রদান করা হবে। উল্লেখ্য, এই বিভাগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন ২০০৭ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত।

ঢাকা ইউনিভার্সিটি ছাত্র সংসদের জনপ্রিয় সাহিত্য সম্পাদক আলী রীয়াজ উচ্চতর ডিগ্রি গ্রহনের পর প্রথমে যুক্তরাজ্য এবং পরবর্তীতে যুক্তরাষ্ট্রে এসে ইস্ট-ওয়েস্ট সেন্টার ফেলোশিপে হাওয়াই ইউনিভার্সিটি থেকে ১৯৯৩ সালে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে পিএইচডি করেন। ২০০২ সালে ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটিতে যোগদানের আগে তিনি সাউথ ক্যারলিনায় ক্যাফলিন ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষকতা করেন।

১৯৮৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লেকচারার হিসেবে যোগদানের পর ১৯৮৭ সাল পর্যন্ত একই অবস্থায় শিক্ষকতা করেন আলী রীয়াজ। সহকারি অধ্যাপক হিসেবে ১৯৯৩ থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েই অধ্যাপনা করেন। যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকালে বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিসে পাঁচ বছর সাংবাদিকতাও করেছেন ড. রীয়াজ।

দক্ষিণ এশিয়ান রাজনীতি এবং ইসলামিক রাজনীতিতে বিশেষ জ্ঞান থাকার কারণে সিএনএনসহ শীর্ষস্থানীয় মার্কিন গণমাধ্যমে প্রায়ই ড. রীয়াজের মতামত নেওয়া হয়। ২০১৩ সালে ওয়াশিংটন ডিসিতে অবস্থিত খ্যাতিসম্পন্ন থিঙ্কট্যাংক ‘উড্রো উইলসন ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর স্কলার্স-এর পাবলিক পলিসি স্কলার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন বাংলাদেশী এই অধ্যাপক। ২০১৩ এবং ২০১৫ সালে তিনি মার্কিন কংগ্রেসে বাংলাদেশের পরিস্থিতির আলোকে বক্তব্য রাখেন। ২০০৮ সালে ইউএস কমিশন অন ইন্টারন্যাশনাল রিলিজিয়াস ফ্রিডমে বাংলাদেশের ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের অবস্থার আলোকে বক্তব্য দিয়েছেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে