• অারও

আবারও হার

  ক্রীড়া ডেস্ক

১৪ মার্চ ২০১৮, ২৩:১৫ | আপডেট : ১৫ মার্চ ২০১৮, ১৭:৩১ | অনলাইন সংস্করণ

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে গত ম্যাচে দারুণ জয়ের পর টাইগার ওপেনার তামিম ইকবাল খান  ম্যাচটির নাম দিয়েছিলেন ‘বাংলাদেশি ব্র্যান্ডের ক্রিকেট। ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদও সেই একই কথার পূনরাবৃত্তি করে ফাইনালের আশা দেখিয়েছিলেন। কিন্তু প্রত্যাশা আর প্রাপ্তির সাথে বাস্তবে কিছু করে দেখানোর ফারাকটা ছিল স্পষ্ট। আবার হার বরণ করতে হল টাইগার বাহিনীকে।

কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে ভারতের দেওয়া ১৭৭ রান তাড়া করতে নেমে ৬ উইকেটে ১৫৯ করেই হেরে যায় বাংলাদেশ। আর  ফাইনালে পৌঁছে যায় তিন ম্যাচ জেতা ভারত।

শুরুতে বোলিংয়ে নেমে রানের গতি ঠিকই দমিয়ে রেখেছিল টাইগাররা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের তাণ্ডবে সেটা ধরে রাখা সম্ভব হয়নি। শেষ দিকে বোলারদের গা’ছাড়া বোলিংয়ে বড় লক্ষ্য দেয় ভারত। যা পরবর্তীতে আফসোসের কারণ হয়ে দাঁড়ায় টাইগারদের।

আগের ম্যাচের মত এবারও একাই বুক চেতিয়ে লড়ে গেছেন মুশফিকুর রহিম। দ্বিতীয় ম্যাচে হাফসেঞ্চুরি তুললেও দলকে এবার জয় এনে দিতে পারেননি মুশি। মুশফিকের সঙ্গে সাব্বিরের জুটিটা কিছুটা আশা যোগালেও শেষ পর্যন্ত তা টেকেনি। এদিনও খাপছাড়া ক্রিকেট খেলেন সাব্বির। একজন যোগ্য সঙ্গীর অভাবে ক্রিজে মাথা কুটেছেন মুশফিক।

সাবিবর রহমান (২৭) এবং মেহেদি হাসান মিরাজ ৭ রানে আউট হন। ৭২ রানে অপরাজিত ছিলেন মুশফিক।

শুরুতেই চার উইকেট হারিয়ে দিশেহারা ছিল বাংলাদেশ। গত ম্যাচে দারুন খেলা লিটন দাশ (৭) দিনেশ কার্তিকের স্ট্যাম্পিং এর শিকার হন। এর পরই অফ ফর্মে থাকা সৌম্য সরকার (১) ও ওপেনার তামিম ইকবাল (২৭) প্যাভিলিয়নে ফিরে যান। দুজনই ওয়াশিংটন সুন্দরের শিকারে পরিণত হন। অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ধীরে শুরু করলেও বেশি সময় ক্রিজে থাকতে পারেননি। যুজবেন্দ্র চেহেলের বলে লোকেশ রাহুলের  তালুবন্ধি হন তিনি।

বোলিংয়ে টাইগারদের প্রথম ব্রেক থ্রু এনে দেয় রুবেল হোসেন। ইনিংসের নবম ওভারে তার শর্ট ডেলিভারি মিস করায় স্ট্যাম্প উড়ে যায় ভারতীয় ওপেনার শিখর ধাওয়ানের। ২৭ বলে ৩৫ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি।

এর পর জুটি গড়েন রোহিত শর্মা আর সুরেশ রায়না। ক্রিজে এসেই বোলারদের ওপর চড়াও হন সুরেশ। ইনিংসের শেষ ওভারে সুরেশ রায়নাকে ওই রুবেলই শিকার করেন। ৩০ বলে ৪৭ করা রায়না সৌম্য সরকারকে ক্যাচ দেন। ৫টি চার ও ২টি ছক্কা হাঁকান তিনি। ইনিংসের শেষ বলে শিখর ধাওয়ান (৮৯) রানে আউট হন। দিনেশ কার্তিক ২ রানে অপরাজিত ছিলেন।

বাংলাদেশি বোলারদের মধ্যে ৪ ওভারে ২৭ রানের বিনিময়ে ২টি উইকেট নেন রুবেল হোসেন। তিনি রোহিতকে রান আউটও করেন।

 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে