সব মিলিয়ে এটা একটা সফল সফর : সাকিব

  স্পোর্টস ডেস্ক

০৯ আগস্ট ২০১৮, ১২:৩৮ | আপডেট : ০৯ আগস্ট ২০১৮, ১৬:০৮ | অনলাইন সংস্করণ

টেস্ট হারলেও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয় করে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। স্বভাবতই দলে আনন্দ। দেশের মাটিতে ত্রিদেশীয় সিরিজ হারার পর বিদেশের মাটিতে ৯ বছর পর কোনো সিরিজ জেতার প্রাপ্তিটা দলের জন্য অনেক। এমনটাই মনে করছেন টাইগারদের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তিনি বলেছেন, ‘সব মিলিয়ে এটা একটা সফল সফর।’

আজ বৃহস্পতিবার সকাল পৌনে ৯টায় দেশের মাটিতে পা রাখে বাংলাদেশ দল। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে নামার পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে সাকিব বলেন, ‘সব মিলিয়ে বলতে গেলে এই ট্যুরটা সফল বলতে হবে। তিনটা ট্রফির মধ্যে দুইটা জিতেছি। দেশের বাইরে তো এ রকম রেজাল্ট আমরা করি না সাধারণত। খুবই সন্তুষ্ট।’

টেস্টে নিজেকে মেলে ধরতে না পারলেও ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে সফল বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। নিজের পারফরম্যান্স নিয়েও সন্তুষ্ট টাইগার দলনেতা বলেন, ‘নিজের পারফরম্যান্স নিয়ে অবশ্যই খুশি। হয়তো আরও অবদান রাখতে পারলে আরও ভালো হতো। ওভারঅল যে ধরনের পারফরম্যান্স হয়েছে তা নিয়ে খুবই আনন্দিত।’

১৫ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হতে যাওয়া এশিয়া কাপের আগে এই সফরের জয় দলে কতটা অবদান রাখবে এমন প্রশ্নের উত্তরে সাকিব বলেন, ‘আসলে সবার আত্মবিশ্বাস অনেক উঁচুতে। বিশেষ করে এরকম একটা ভালো সিরিজের পর আমি বিশ্বাস করি, এখান থেকে হয়ত নতুন কিছু করার দিকে চিন্তা করতে পারব। যেটা আমাদের সামনে এশিয়া কাপে অনেক কাজে দেবে।’

চলতি বছরের জানুয়ারিতে ঘরের মাঠে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে ফিল্ডিংয়ের সময় বাঁহাতের আঙুলে আঘাত পেয়েছিলেন সাকিব। আঘাতের পরিমাণটা হয়তো অনেক বেশি তাই যতদ্রুত সম্ভব সেটা থেকে পরিত্রাণ পেতে চাচ্ছেন তিনি। এশিয়া কাপের আগেই পুরোপুরি ফিট হয়ে দলে ফিরতে চান এই অলরাউন্ডার। হাতে অস্ত্রোপচার করার ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘এটা তো সবাই আমরা জানি এখন যে সার্জারি করতে হবে। ওটা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে কোথায় করলে ভাল হয়, কবে করলে ভাল হয়। তবে আমি মনে করি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব করে ফেলা ভালো।’

তবে তিনি চাইলেই এশিয়া কাপের আগে অস্ত্রোপচার করাতে পারবেন কী না তা নিয়ে আছে সংশয়। কারণ, এখনই অপারেশন করানো হলে কমপক্ষে ২ মাস মাঠের বাইরে থাকতে হবে তাকে। এতে তিনি এশিয়া কাপ খেলতে পারবেন না তা অনুমেয়। তবে বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের পুরো ফিট না হয়ে এশিয়া কাপে খেলতে চান না জানিয়ে সাকিব বলেন, ‘আমি তো তাই মনে করি হওয়া উচিৎ, কারণ চাই না যে ফুল ফিট না থেকে খেলতে। কাজেই সেভাবে যদি চিন্তা করি এশিয়া কাপের আগে হবে এটাই নরমাল।’

ক্যারিবীয় সফরের প্রথম ওয়ানডেতে ব্যাট হাতে ৯৭ রান করা সাকিব আল হাসানের হাত ছিল উইকেটশূন্য। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ব্যাটিং ও বোলিং দুটি বিভাগেই ছিলেন উজ্জ্বল। ৫৬ রানের পাশাপাশি নিয়েছেন দুটি উইকেট। তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে ব্যাট হাতে ৩৭ রানের পাশে ছিল না কোনো উইকেট।

আর টি-টোয়েন্টিতে প্রথম ম্যাচে উইকেটশূন্য ও ১৯ রানে ফিরে গেলেও দ্বিতীয়টিতে ৬০ রান ও ২ উইকেট ও তৃতীয় এবং শেষটিতে ২৪ রান ও ১ উইকেট শিকার করে হয়েছেন ম্যান অব দ্য সিরিজ।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে