কেমন ছিল গ্রুপপর্ব

  আবীর রহমান

৩০ জুন ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ৩০ জুন ২০১৮, ০৮:১২ | অনলাইন সংস্করণ

চার বছর পর আবারও উদিত হয়েছে বিশ্বকাপ ফুটবলের সূর্য। যার আলোয় ছড়াচ্ছে উত্তাপ, উত্তেজনা, উৎকণ্ঠা। পুরো বিশ্ব বুঁদ হয়ে আছে বিশ্বকাপে। এর পর রূপ, রস, মাধুর্যে ডুবে আছে সবাই। দেখেতে দেখতে শেষ হয়ে গেল রাশিয়া বিশ্বকাপের গ্রুপপর্ব। এবারের বিশ্বকাপের পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে উত্তেজনা। টপ ফেভারিট আর্জেন্টিনার কঠিন সমীকরণ, ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন জার্মানির বিদায়, ফেভারিটদের দুরবস্থা। সব মিলিয়ে গ্রুপপর্বেই রোলার কোস্টার রাইডের উত্তেজনা পেয়েছে ফুটবল বিশ্ব। আগামীতে আরও কী চমক দেখাবে রাশিয়া বিশ্বকাপ তার জন্য অধীর আগ্রহে মুখিয়ে আছে ফুটবলপ্রেমীরা। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক রাশিয়া বিশ্বকাপের গ্রুপপর্বের উপাখ্যান।

বিদায় নিল যারা : রাশিয়া বিশ্বকাপের গ্রুপপর্ব থেকে বিদায় নিয়েছে ষোলোটি দল। বিদায় নেওয়া দলগুলো হলো মিসর, সৌদি আরব, ইরান, মরক্কো, অস্ট্রেলিয়া, পেরু, আইসল্যান্ড, নাইজেরিয়া, সার্বিয়া, কোস্টারিকা, জার্মানি, দক্ষিণ কোরিয়া, তিউনিসিয়া, পানামা, সেনেগাল এবং পোল্যান্ড।

অঘটন : রাশিয়া বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের সবচেয়ে বড় অঘটন ছিল আসরের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন জার্মানির বিদায়। অতীত ইতিহাসের হিসাব-নিকাশের চোখ রাঙানি থাকলেও দলটি জার্মানি বলে আশা দেখছিল ফুটবলপ্রেমীরা। ২০০২ বিশ্বকাপ থেকেই ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা বিদায় নিয়েছে গ্রুপপর্ব থেকে। তবে জার্মানির সামনে জটিল সমীকরণ থাকলেও শেষ ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ ছিল দক্ষিণ কোরিয়া। শেষ ম্যাচে কী খেলাটাই না খেলল দক্ষিণ কোরিয়া! যেমন দুর্ভেদ্য ডিফেন্স, তেমনি শান দেওয়া দুর্দান্ত আক্রমণ! এই দলটি আগের দুই ম্যাচ হেরে নিজেদের বিদায় নিশ্চিত করেছে। শেষ ম্যাচে কী হয়ে গেল তাদের, চোখ ধাঁধানো ফুটবল গ্রুপপর্ব থেকেই বিদায় করে দিল বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানিকে! ২-০ ব্যবধানের এই জয়ে গোলদুটি এসেছে যোগ করা সময়ে। নিঃসন্দেহে এটি রাশিয়া বিশ্বকাপের এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় অঘটন।

গোলের বন্যার ম্যাচ : এবারের বিশ্বকাপের উদ্বোধনী দিনেই স্বাগতিক রাশিয়া গোলবন্যায় ভাসিয়েছে সৌদি আরবকে। ম্যাচে ৫-০ গোলে জয় পেয়েছে রাশিয়া। এর পর একই দিনে স্পেনের বিপক্ষে মাঠে নামে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর পর্তুগাল। ম্যাচে মোট ছয় গোল করেছে দুই দলই। প্রথম দিনেই জানান দিয়েছে রাশিয়া এবারের বিশ্বকাপে বইতে চলেছে গোলবন্যা। এর পর গ্রুপ ‘জি’র দুই প্রধান দল যেন গোলের বন্যা বইয়ে দিল। বেলজিয়াম ৫-২ গোলে হারাল তিউনিসিয়াকে। আর ইংল্যান্ড ৬-১ গোলে পানামাকে। গ্রুপপর্ব শেষে রাশিয়া বিশ্বকাপে মোট গোল হয়েছে ২.৫৪ গড়ে ১২২টি!

একমাত্র গোলশূন্য ড্র : এবারের বিশ্বকাপের গ্রুপপর্বে একমাত্র ফ্রান্স বনাম ডেনমার্কের ম্যাচটিই গোলশূন্য ড্র হয়েছে। এ ছাড়া প্রতিটি ম্যাচেই গোলের দেখা মিলেছে। ইরান বনাম মরক্কোর ম্যাচ গোলশূন্য ড্র হওয়ার আশঙ্কা ছিল। কিন্তু আত্মঘাতী গোলে হারল মরক্কো।

গোল্ডেন বুটের দৌড়ে তারা : এবারের বিশ্বকাপে গোল্ডেন বুটের দৌড়ে সবচেয়ে এগিয়ে ইংল্যান্ডের হ্যারি কেন। পাঁচ গোল করে তালিকার শীর্ষে হ্যারি। চার গোল করে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন পর্তুগালের ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। সমান গোল করেছেন বেলজিয়ামের রোমেলু লুকাকুও।

অভিনেতা নেইমার : বিশ্বব্যাপী নেইমারের কোটি কোটি ভক্ত। রাশিয়ায় তার কিছু আচরণে সমালোচকদের পাশাপাশি ক্ষিপ্ত হয়েছেন নেইমার ভক্তরাও। বিশেষ করে ব্রাজিল কোস্টারিকার বিরুদ্ধে যে ম্যাচে ২-০ গোলে নাটকীয়ভাবে জিতল, সেই ম্যাচে নেইমারের অভিনয় ব্যাপক সমালোচিত হয়েছে।

খাদের কিনারে মেসি : প্রথম দুটি ম্যাচে আর্জেন্টিনার সংগ্রহ ছিল মাত্র এক পয়েন্ট। যদি নাইজেরিয়ার বিরুদ্ধে শেষ ম্যাচে জিততে না পারে, তা হলে টুর্নামেন্ট থেকেই তাদের বাদ পড়তে হবে। প্রবল চাপের মুখে দলকে শেষ ম্যাচে ২-১ গোলে জেতান মেসি। পুরো ম্যাচে মেসির খেলা ছিল প্রশংসনীয়। মেসি এবং রোহোর গোলে শেষ ১৬ নিশ্চিত হয়েছে আর্জেন্টিনার।

অভাগা সালাহ : বিশ্বকাপের গ্রুপপর্ব থেকেই বিদায় নিয়েছে মোহামেদ সালাহর মিসর। গ্রুপ পর্বের তিনটি ম্যাচেই হেরেছে তারা। প্রথম ম্যাচে মাঠের বাইরে ছিলেন দলের সেরা তারকা মো সালাহ। এবারের বিশ্বাকের আগে থেকেই সালাহর প্রতি বিশেষ নজর ছিল সবারই। বাস্তবতার বিচারে মিসর অনেক দূর যেতে পারবে এমনটা কারো প্রত্যাশা না থাকলেও সালাহর কাছ থেকে ভালো কিছু আশা করেছিলেন সমর্থকরা। তবে প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ মো সালাহ।

লালকার্ড, হলুদকার্ড : জাপানের বিরুদ্ধে খেলায় এবারের বিশ্বকাপের প্রথম লালকার্ড দেখেছেন কলম্বিয়ার কার্লোস সানচেজ। রাশিয়া বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ডে ১৫৮টি হলুদকার্ড দেখানো হয়েছে। লালকার্ড দেখানো হয়েছে তিনটি।

খেলার মাঠে রাজনীতি : সার্বিয়ার বিরুদ্ধে জয়ের পর ঈগলের ভঙ্গিমায় শাকা এবং শাকিরি। সার্বিয়ার বিরুদ্ধে গোল করার পর যে ভঙ্গিতে উল্লাস করেছেন, সেটি রাজনৈতিক বিতর্ক সৃষ্টি করে। শাকা এবং শাকিরি, দুজনেই সুইজারল্যান্ড জাতীয় দলের খেলোয়াড় হলেও কসোভোর সঙ্গে তাদের সম্পর্ক আছে এবং দুজনেই আলবেনিয়ান বংশোদ্ভূত। সার্বিয়ার বিরুদ্ধে গোল করার পর দুজনেই দুই হাতে ঈগলের ভঙ্গিমায় উল্লাস করেন, যা আসলে আলবেনিয়ার জাতীয় পতাকার প্রতীক। ফলে দুজনকেই গুনতে হয়েছে জরিমানা।

উল্লেখ্য, কসোভো ২০০৮ সালে সার্বিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিল। তাদের এই উল্লাসের ভঙ্গিমা স্বাভাবিকভাবেই সার্বিয়ার কাছে অপমানজনক মনে হয়েছে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে