পার্ক দখল

সব বয়সী নাগরিকদের জন্য পার্ক ও মাঠ চাই

  সম্পাদকীয়

২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০১:১২ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকার বিভিন্ন মহল্লায় যে ছোট-বড় পার্ক আর খোলা মাঠ আছে সেগুলো দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহারযোগ্যতা হারাচ্ছে। শিশুপার্ক আর খোলা মাঠ হওয়ার কথা শিশুদের ক্রীড়াঙ্গন। স্কুল ছুটির পর তাদের বেশিরভাগ সময় কাটার কথা খেলার মাঠেই। কিন্তু তা হওয়ার জো নেই। একদিকে শিশুরা রয়েছে পড়াশোনার প্রচ- চাপে আর অন্যদিকে বড়দের মধ্যে একদল রয়েছে কীভাবে খালি জায়গা দখল করে মার্কেট কিংবা অন্যান্য স্থাপনা বানিয়ে লাভবান হবে সে চিন্তায়।

বাংলাদেশে বর্তমান সময়ে নগদ লাভবান হওয়ার এক অদূরদর্শী উচ্চাভিলাষী অসুস্থ প্রতিযোগিতা চলছে। এর ফলে নদী আর খাল ভরাট হচ্ছে, মাঠ আর পার্ক দখল হয়ে যাচ্ছে। পাশাপাশি পরীক্ষা ও কোচিংয়ের চাপে শিশুদের বর্তমানকে সাফল্যে রাঙাতে গিয়ে বড়রা তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে ছিনিমিনি খেলছেন।

বড়দের অসুস্থ প্রতিযোগিতার শিকার হয়ে শিশুরা আজ নানা রকম বিপথে পা বাড়াচ্ছে। গ্যাংস্টার দল গড়ে তারা ভয়ঙ্কর অপরাধেও জড়াচ্ছে। একইভাবে লাভের প্রতিযোগিতায় মেতে বড়রাও জড়িয়ে পড়ছেন মারাত্মক সব অপরাধে। এই সামাজিক বিকার দেখে সবাই আতঙ্কিত। সরকারের তরফ থেকেও কেবল কঠোর আইন প্রয়োগ ও কঠিন শাস্তির কথাই ভাবা হয়। কিন্তু কোন পথে বিপথগামিতা বন্ধ হবে সেটা ভাবা হচ্ছে না।

নগরীর সৌন্দর্য বৃদ্ধি, ইট-কাঠ-লোহার মধ্যে সবুজের কিছু সমাবেশ, বায়ুদূষণ রোধে এবং সব বয়সের নাগরিকদের স্বচ্ছন্দ অবকাশকালে হাঁটাচলার জন্য তো পার্ক, মাঠ এবং উন্মুক্ত স্থান দরকার। মহানগরীতে কেবল ঘরবাড়ি, সড়ক ও ফ্লাইওভার, নালা-নর্দমা বাড়ছে, পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে গাড়ি। এতে শব্দ ও বায়ুদূূষণ মারাত্মক পর্যায়ে পৌঁছেছে। বৃদ্ধ ও শিশুদের স্বাস্থ্যের কথা ভাবার কারো সময় নেই। নারীদের স্বাস্থ্যরক্ষার জন্যও পার্ক ও মাঠের প্রয়োজন অস্বীকার করা যাবে না। ফলে পার্ক, মাঠ বা খোলা জায়গা দখল করার মানসিকতা বন্ধ করতে হবে।

আমাদের মনে হয়, ঠিকভাবে বাঁচতে হলে নগরবাসীর স্বাস্থ্যের দিকে নজর দিতে হবে। সেদিক থেকে পার্কগুলো রক্ষা করা বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। এ কেবল রাজধানী ঢাকার জন্য নয়, সব নগরীতেই অত্যন্ত গুরুতর সমস্যা হিসেবে দেখা দিয়েছে। সারা দেশে নগরবাসী ক্রমবর্ধমান পরিবেশদূষণের শিকার হচ্ছেন। সাম্প্রতিক এক আন্তর্জাতিক জরিপে দেখা গেছে, ঢাকা বাসযোগ্যতার দিক থেকে বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে তলানিতে পৌঁছেছে। দেশের অন্যান্য নগরীর উন্নয়নও ঘটছে ঢাকার আদলেই। সারা দেশ পরিবেশদূষণে বাসযোগ্যতা হারানোর আগেই আমাদের সচেতন হতে হবে ও যথাযথ ব্যবস্থা নিতে হবে।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে